আপনি যদি মনে করেন বিনা পুজিতে লাভজনক ব্যবসা করা সম্ভব নয়।

তাহলে আপনি ভুল। আপনি বিনা পুজিতেও ব্যবসা করতে পারবেন।

কারণ সকল ব্যবসার ক্ষেত্রেই যে পুজি লাগে তা কিন্তু নয়।

আর ব্যবসা করার ক্ষেত্রে পুজির থেকেও যে জিনিসটা বেশি লাগে, তা হল- স্কিল ও সময়। আর আমরা সকলেই ফ্রি টাকা ইনকাম করতে চাই।

যে কেউ, যেকোন সময়ে, যেকোন বয়সে ব্যবসা করতে পারেন। এতে কোন ইনভেস্টমেন্ট এর প্রয়োজন নাই। এমন কতকগুলি ব্যবসা নিয়েই জানা হবে।

কেন বিনা পুজিতে লাভজনক ব্যবসার উপায় জানতে হবে

আমাদের দেশে দিন দিন বেকারের সংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে।

কারণ, কাজের ক্ষেত্রের তুলনায় মানুষের সংখ্যা বেশি।

এই বেকার অবস্থায় মানুষ হীনমন্যতায় ভুগে থাকে।

তখন আমাদের উচিত কাজের বা চাকরির পেছেন না ছুটে নিজে থেকেই ব্যবসা করে নিজের পায়ে দাঁড়ানো।

আবার অনেকে মনে করেন, ব্যবসা করতে অনকে পুজি লাগে। এই অজুহাতে আর ব্যবসা করতে চান না। যেটা একদম ভুল ধারণা।

কারণ আপনি চাইলেই বিনা পুজিতে লাভজনক ব্যবসা করে প্রতিমাসে ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন।

বিনা পুজিতে লাভজনক ব্যবসা করার উপায়

টাকা না থাকেই ব্যবসা হবে না। এই কথা একদম সঠিক নয়। ব্যবসা করার জন্য আপনার ধৈর্য, সাহস, স্কিল থাকতে হবে। তবেই আপনি সফল হতে পারবেন। আর এভাবেই সবাইল সফল হয়েছে।

কোন সফল ব্যক্তিই কারি কারি টাকা ইনভেস্ট করে সফল হয়নি।

সকলেই জিরো থেকে শুরু করেই সফল হয়েছেন। দেখে নেই বিনা ইনভেস্টে লাভজনক ব্যবসা করার উপায়গুলি-

১. রাইড শেয়ারিং (Ride- Sharing)

২. ড্রপশিপিং (Dropshipping)

৩. নিজের দক্ষতাকে বিক্রি করে (Sell your skills)

৪. অ্যাফেলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate Marketing)

৫. অনলাইন কোর্স বিক্রি করে (Sell Online Courses)

৬. ঘটক ব্যবসা

৭. ছবি বিক্রি করে (Sell Own Photos)

৮. ব্লগ লিখে (Blogging) 

৯. টিচিং করে (Teaching)

১০. বই বিক্রি করে (Selling Books)

১) রাইড শেয়ারিং (Ride- Sharing)

এটা এমন এক ব্যবসা, এতে কোন পুজি লাগেনা।

আপনার কাছে থাকা মটরসাইকেল দিয়েই আপনি এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

এখন অনেকেই এই ব্যবসা করে সংসার চালাচ্ছে। আপনি কেন চাকরির আশায় বসে থাকবেন। আপনিও এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

বাংলাদেশে অনেক রাইড শেয়ারিং সার্ভিস আছে। এই সকল প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ব্যবসা করার জন্য এদের অ্যাপে আপনাকে যুক্ত হতে হবে।

এরপর আপনি যাত্রীদের এক স্থান থেকে অন্য স্থানে পাঠানোর জন্য টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

এই ব্যবসা করে আপনি অনায়েসেই মাসে ৫০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন। কোন পুজি ছাড়াই কয়েকটি রাইড শেয়ারিং সার্ভিস হল-

২) ড্রপশিপিং (Dropshipping)

এটি আরো একটি পুজি ছাড়া ব্যবসা। এই ব্যবসা করতে আপনার কোন পন্য থাকতে হবেনা। এছাড়া আপনার কোন দোকান বা পন্য পাঠানোর খরচ থাকতে হবেনা। এমনকি কোন পন্য পাঠানোর ব্যবস্থাও করতে হবেনা। আপনাকে শুধু যারা ড্রপ শিপিং সেবা দেয়।

তাদের ওয়েবসাইটে যেয়ে পন্য পছন্দ করে তাদের নির্ধারিত পন্যের মূল্যের চেয়ে বেশি দামে পন্যটি বিক্রি করে দিতে হবে।

আপনি যে বেশি দামে পন্যটি বিক্রি করে দিলেন।

সেটা ধরেই আপনার লাভ হবে। এখানে শুধু আপনাকে তাদের পন্যটি বিক্রি করে দিতে হবে। আর কিছুই করতে হবেনা।

ড্রপশিপিং সেবা দেয় এমন কয়েকটি ওয়েবসাইট হল-

৩) নিজের দক্ষতাকে বিক্রি করে (Sell your skills)

আপনি যদি যেকোন টেকনিক্যাল কাজে অনেক দক্ষ হয়ে থাকেন।

তাহলে আপনি আপনার এই স্কিলকে কাজে লাগিয়ে বিনা পুজিতে ব্যবসা করতে পারবেন।

আপনি যদি টাইপিং, ফটো এডিটিং, ভিডিও এডিটিং, লোগো ডিজাইন, ফেসবুক মার্কেটিং ইত্যাদি সহজ কাজে দক্ষ হয়ে থাকেন।

তাহলে আপনি খুব সহজে আপনার স্কিলকে বিক্রি করে ইনকাম করতে পারবেন। আর এর জন্য আপনাকে Fiverr, Upwork, Peopleperhour এর মত ওয়েবসাইটে যেয়ে কাজ করতে হবে। এখানে বায়ার আপনার স্কিলকে কিনে নিয়ে কাজ করাবে।

আর বিনিময়ে আপনাকে টাকা দিবে।

আপনি এভাবে প্রতিমাসে কমপক্ষে ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন।

বিনা পুজিতে লাভজনক ব্যবসা

How To Start a Business With No Money

৪) অ্যাফেলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate Marketing)

আপনি যদি মনে করেন, আপনি বিনা পুজিতে, কোন প্রকার দোকান ও পন্য ছাড়াই লাভজনক ব্যবসা করবেন।

তাহলে অ্যাফেলিয়েট মার্কেটিং হবে আপনার জন্য বেস্ট অপশন। অ্যাফেলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate marketing) মানে হল অন্যের পন্য বিক্রি করে দেওয়ার মাধ্যমে কমিশন করা।

এটা খুবই সহজ ও লাভজনক ব্যবসা। ধরুন আপনাকে একটি পন্য দেওয়া হল। যার দাম ১০ ডলার। আপনাকে বলা হল আপনি যদি এই ১০ ডলারের পন্য বিক্রি করে দিতে পারেন, তাহলে আপনাকে ২ ডলার কমিশন দেওয়া হবে। এই প্রক্রিয়াকেই অ্যাফেলিয়েট মার্কেটিং বলে।

এভাবে আপনি দিনে ১০ থেকে ২০ বার কমিশন পেলে আপনার ইনকাম হবে আকাশ ছোয়া। অনেক প্রতিষ্ঠান আছে।

যারা অ্যাফেলিয়েট সার্ভিস দেয়। যেমন- Amazon, Daraz ইত্যাদি। আপনাকে তাদের পন্য ফেসবুক, ইউটিউব ইত্যাদি মাধ্যমে প্রচারণা করে বিক্রি করে দিতে হবে। এর বিনিময়ে আপনি টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এভাবে ব্যবসা করে প্রতিমাসে ৫০ হাজারের বেশি টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

৫) অনলাইন কোর্স বিক্রি করে (Sell Online Courses)

আপনি যদি কোন টাকা ইনকাম করা যার এমন কাজে অনেক দক্ষ ও অভিজ্ঞ হয়ে থাকেন। তাহলে সেই কাজ করে কিভাবে টাকা ইনকাম করা যায়।

এর উপর অডিও ও ভিডিও কোর্স আকারে বানিয়ে একটি নির্দিষ্ট মূল্যের বিনিময়ে মানুষের কাছে বিক্রি করে করা শুরু করে টাকা ইনকাম করতে পারেন।

আপনি ওয়েব ডিজাইন, গ্রাফিক্স ডিজাইন, ডাটা এন্ট্রি, এসইও, সোস্যাল মিডিয়া মার্কেটিং ইত্যাদির উপর কোর্স বানিয়ে তা অনলাইনেই বিক্রি করতে পারেন।

এক্ষেত্রে আপনার কোর্সের কোয়ালিটি অনেক ভাল হতে হবে।

আর দাম হতে হবে লাগালের মধ্যে। তাহলেই আপনি এই কোর্স বিক্রি করে ফ্রিতে ব্যবসা করে রাতারাতি অনেক টাকা ইনকাম করে নিতে পারবেন।

৬) ঘটক ব্যবসা

পুজি ছাড়া একদম লাভজনক ব্যবসা এটি। এছাড়া এই ব্যবসার মাধ্যমে আপনি সামাজিক ভাল একটি কাজ করতে পারবেন।

ঘটক ব্যবসা করতে আজকাল কোন ঘর ভাড়া নিতে হয়না। আপনি চাইলে অনলাইনেই শুরু করে দিতে পারেন।

অনলাইনেই পাত্র পাত্রীর বায়োডাটা সংগ্রহ করে উভয়ের কাছ থেকে টাকা নিয়ে তাদের দেখার সুযোগ করে দিতে পারেন।

এভাবে যত বিয়ে করাবেন। তত আপনার টাকা ইনকাম হবে।

৭) ছবি বিক্রি করে (Sell Own Photos)

আপনি যদি একজন ভাল ফটোগ্রাফার (Photographer) হয়ে থাকেন। তাহলে আপনার জন্য রয়েছে সুবর্ণ সুযোগ। 

ছবি তুলে তা অনলাইনে বিক্রি করে অনেকে মাসে ১ লাখ টাকাও আয় করছে। আপনিও চাইলেই ছবি তুলে ইনকাম শুরু করে দিতে পারেন।

আপনি যেকোন কিছুর ছবি তুলতে পারেন। যেমন- নিজের ঘর, ফুল, প্রাকৃতিক দৃশ্য, পাখি, নদী, আকাশ ইত্যাদি সকল কিছু।

এরপর আপনাকে এই ছবিগুলি অনলাইনের বিভিন্ন ওয়েবসাইটের মাধ্যমে বিক্রি করে দিতে হবে। 

ছবি বিক্রি করে টাকা আয় করে যায়, এমন কয়েকটি ওয়েবসাইট হল:

পড়ুনঃ অনলাইনে ছবি বিক্রি করে আয় করার সহজ উপায়

৮) ব্লগ লিখে (Blogging) 

কোন প্রকার ইনিভেস্ট না করে লাভজনক ব্যবসা হল ব্লগ লিখে আয় করা।

আপনি মোটামুটি ভাল যেকোন বিষয়ের উপর লিখতে পারলেই ইনকাম করতে পারবেন।

ব্লগ লেখার জন্য আপনাকে Blogger প্ল্যাটফর্ম বেছে নিতে হবে।

কারণ এখানে ফ্রিতে ব্লগ লেখা যায়। অনেক ব্লগ লেখা হয়ে গেলে আর আপনার লেখা মানুষ পড়তে শুরু করলে।

আপনি সেই ব্লগে বিজ্ঞাপণ লাগিয়ে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

আপনার ব্লগ ওয়েবসাইটের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধির সাথে সাথে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান আপনার ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপণ দেওয়ার জন্য আপনাকে প্রতিমাসে টাকা প্রদান করবে।

এছাড়াও গুগল এডসেন্স থেকে আপনি প্রতিমাসে ইনকাম করতে পারবেন।

এভাবে ব্লগ লিখে সঠিক উপায়ে ব্যবসা করে প্রতি মাসে ৫০ থেকে ৮০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন।

৯) টিচিং করে (Teaching)

শুনতে খারাপ লাগলেও আজকাল টিচিং করানো একটা ব্যবসায় পরিণত হয়েছে।

আপনি যদি গণিত, বিজ্ঞান বা ইংলিশে ভাল হয়ে থাকেন। তাহলে আপনি আপনার বাড়ির গ্যারেজ বা যেকোন ঘরে ব্যাচে যেকোন ক্লাসের ছাত্র পড়ানো শুরু করতে পারেন।

শুরুর দিকে আপনাকে অনেক সংগ্রাম করতে হতে পারে। কিন্তু আপনি ধীরে ধীরে ছাত্র পড়িয়ে মাসে ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন। 

১০) বই বিক্রি করে (Selling Books)

বিনা পুজিতে লাভজনক ব্যবসা হল বই বিক্রি করে আয়। তাও আবার নিজের লেখা বই। আপনি যদি খুব ভাল লিখতে পারেন।

যেমন গল্প, উপন্যাস, কবিতা তাহলে সেগুলি বই আকারে লিখে অনলাইনে পাবলিশ করে ইনকাম করতে পারবেন।

এই রকম অনেক অনেক ওয়েবসাইট আছে, যেখানে বই বিক্রি করে ইনকাম করা যায়।

যেমন- Amazon Kindle, Gumroad। এখানে ই বুক আকারে বই লিখে পাবলিশ করতে হবে। আপনার বই যত বিক্রি হবে। আপনি তত এখান থেকে টাকা উঠাতে পারবেন। এভাবে প্রতিমাসে ৪০ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

উপসংহার 

আপনি যদি মনে করেন, আপনি ব্যবসা করে ভাল একটা ইনকাম করতে চান।

তাহলে আপনার যে শুধু অনেক অনেক পুজি থাকতে হবে। এমন কিন্তু মোটেও নয়। ব্যবসা করার জন্য আপনার থাকতে হবে স্কিল।

আর আপনাকে ব্যবসাতে সময় দিতে হবে। কোন প্রকার ধৈর্যহারা হওয়া যাবেনা। তবেই আপনি ব্যবসাতে ভাল করবেন।

আর আপনার থাকতে হবে প্রচুর একাগ্রতা ও পরিশ্রমী মানসিকতা।

তবেই আপনি ব্যবসা করে ভাল ইনকাম করতে পারবেন।

পোস্টটি শেয়ার করুন-