আপনারা যারা অবসরে সময় কাটান। তাদের জন্য সুসংবাদ। এখন টিকটক থেকে টাকা ইনকাম করা যাচ্ছে একদম সহজেই। বেশ কয়েক উপায়েই Tiktok থেকে আয় করা যাচ্ছে।

আমরা জানব কিভাবে তা খুব সহজেই করা যায়। টিকটকের নাম শোনেননি এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া যাবেনা। Tiktok হল শর্ট ভিডিও মেকিং প্ল্যাটফর্ম।

আর মানুষ একবার এখানে ঢুকলে আর বের হতে চায়না। এখানে একের পর এক ভিডিও দেখেই যায়।

নানা ধরনের ভিডিও কন্টেন্ট এখানে রয়েছে। আর মানুষ এই কন্টেন্ট ঘন্টার পর ঘণ্টা সময় কাটায়।

আপনিও চাইলেই ভিডিও দেখে সময় নষ্ট না করে, নিজে ভিডিও বানিয়ে ইনকাম শুরু করে দিতে পারেন। আর আপনার ভিডিও একবার ভাইরাল হলে তো আর কথাই নেই।

তখন আপনার ফ্যান-ফলোয়ার বাড়ার সাথে সাথে ইনকামও হতে শুরু করবে।

টিকটক থেকে টাকা ইনকাম করার উপায়

নানা উপায়ে Tiktok থেকে ইনকাম করা সম্ভব হচ্ছে। এই প্ল্যাটফর্মে সাধারণত সকল ক্যাটারগরির ভিডিও প্রকাশ হয়।

আর আমরা এখানে ভিডিও দেখতে অনেক পছন্দ করি। যার ভিডিও বানান, তাদের জন্য এটি ইনকামের অনেক বড় রাস্তা হতে পারে। কেননা এখানে একটি বিশাল ইউজারের (users) সমাবেশ রয়েছে।

ইউটিউব শর্টস কিংবা ফেসবুক রিলস এর আগে Tiktok সবথেকে জনপ্রিয় হয়েছিল।

আরো পড়ুনঃ

পরে ফেসবুক ও ইউটিউব এটিকে অনুসরণ করে ছোট ভিডিও নিয়ে আসে। তারপরেও কিন্তু এর জনপ্রিয়তা কমেনি।

টিকটক থেকে টাকা ইনকাম

How To Make Money on TikTok?

এখানে অনেক উপায়েই আয় করা যায়। এর মধ্যে সবথেকে ভাল উপায়গুলি হল-

১. Creativity program এ যুক্ত হয়ে

২. অ্যাফেলিয়েট পণ্য বিক্রি করে

৩. নিজের পণ্য বিক্রি করে

৪. ভার্টুয়াল gifts এর মাধ্যমে

৫. ক্রাউড ফান্ডিং (Crowdfunding) এর মাধ্যমে

৬. স্পন্সরশীপে মাধ্যমে

৭. নিজের পণ্যের Promotional Video এর মাধ্যমে

৮. রেফারের মাধ্যমে

৯. Premium Paid content এর মাধ্যমে

১০. ওয়েবসাইটের ফ্রি ট্রাফিক থেকে ইনকাম

১১. Tiktok Shop এর মাধ্যমে

১) Creativity program এ যুক্ত হয়ে

আপনার যদি  ১০ হাজার ফলোয়ার ও শেষ ৩০ দিনে ১ লাখ ভিডিও ভিউ (Views) হয়, তাহলে আপনি Tiktok Creativity Program এ যুক্ত হয়ে ইনকাম করতে পারবেন। এর আন্ডারে long video থেকে নানাভাবে ইনকাম করা যায়।

তবে এর জন্য আপনাকে অবশ্যই ১৮ বছরের হতে হবে। আর Community Guidelines মেনে চলতে হবে। এখনো সারা পৃথিবী জুড়ে এই Program চালু হয়নি।

২) অ্যাফেলিয়েট পণ্য বিক্রি করে

যেকোন কোম্পানীর কোন পণ্য আপনার মাধ্যমে বিক্রি করে, সেটা থেকে কমিশন আয় করারকে অ্যাফেলিয়েট মার্কেটিং বলে। যেসকল company অ্যাফেলিয়েট program চালু রেখেছে, তাদের কাছ থেকে Affiliate link সংগ্রহ করে পণ্যটি বিক্রি করতে হয়।

এর ভিডিও খুব দ্রুত ভাইরাল হওয়ার কারণে আপনি ভিডিওতে Affiliate link লাগিয়ে খুব সহজেই পণ্য বিক্রি করে একটি ভাল পরিমাণ টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

৩) নিজের পণ্য বিক্রি করে

আপনি চাইলে আপনার পণ্য বিক্রি করেও এখানে আয় করতে পারেন। এক্ষেত্রে আপনি আপনার পণ্য দেখিয়ে সরাসরি বিক্রি করতে পারেন।

আবার কোন ecommerce ওয়েবসাইট খুলে টিকটকে তার link দিয়েও ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ইনকাম করতে পারেন। আপনার যদি Tiktok Bussiness Account তাহলে আপনি সরাসরি Shopify, Bigcommerce, Square online এ আপনার একাউন্টে যুক্ত করতে পারবেন।

 

৪) ভার্টুয়াল gifts এর মাধ্যমে

আপনি যদি একজন জনপ্রিয় creator হয়ে থাকেন, তাহলে আপনি virtual gifts এর মাধ্যমে ইনকাম করতে পারবেন। Live ভিডিও করার সময় সরাসরি users বা ফলোয়ারদের কাছ থেকে Gifts পেতে পারেন।

সেই Gifts থেকে তা ডলারে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আপনি যেকোন ভিডিও থেকেও এভাবে উপহার পেতে পারেন।

৫) ক্রাউড ফান্ডিং (Crowdfunding) এর মাধ্যমে

আপনি যেকোন projects এর জন্য আপনার ফলোয়ারদের কাছ থেকে ভিডিও এর মাধ্যমে অনুপ্রাণিত করে একসাথে অনেক টাকা জমানোকে ক্রাউড ফান্ডিং বলে।

এর মাধ্যমে আপনি অনেকগুলি ভাল projects ও আপনার ভিডিও এর উন্নতির জন্য ফ্যানদের কাছ থেকে টাকা সংগ্রহ করতে পারেন।

আপনি বিভিন্ন CrowdFunding ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে এই টাকা তুলতে পারেন। কয়েকটি ভাল এই রকম সাইট হলঃ kickstarter, indiegogo, fundable ইত্যাদি।

৬) স্পন্সরশীপের মাধ্যমে

আপনার ভিডিও যদি অনেক জনপ্রিয় হয়, তাহলে আপনি যদি এই জনপ্রিয়তা কাজে লাগিয়ে আপনার ফ্যান-ফলোয়ার বাড়িয়ে নিতে পারেন।

তাহলে আপনার ভিডিওতে অনেক ভিউ হবে।

আর আপনার ভিডিওতে যদি মিলিয়ন মিলিয়ন ভিউ হয়, তাহলে আপনি একজন সেলিব্রিটি হয়ে উঠবেন।

এই রকম হলে বিভিন্ন কোম্পানী তখন আপনার কাছে আসবে।

আপনার মাধ্যম তাদের কোম্পানীর প্রচারণা করতে। তখন আপনি যখন দেখাবেন। অমুক কোম্পানীর জুতা ভাল, অমুক কোম্পানীর জামা ভাল।

অথবা অমুক জায়গা থেকে এটা কিনুন। সেটা কিনুন।

এভাবে কিন্তু তাদের কোম্পানী বা প্রতিষ্ঠানের প্রচারণা হয়ে যাবে। আর এর বিনিময়ে তখন তারা আপনাকে টাকা দিবে। আবার অনেক প্রতিষ্ঠান বলে দিতে পারে যে।

তাদের কোম্পানী বা পেজের লিংক আপনাকে শেয়ার করতে হবে। আর বিনিময়ে আপনাকে দেওয়া হবে টাকা। এভাবে খুব সহজেই ইনকাম করা যাবে।

৭) নিজের পণ্যের প্রচারণামূলক ভিডিও (Promotional Video) এর মাধ্যমে

আপনার নিজস্ব পণ্যের প্রচারণামূলক ভিডিও বানিয়ে আপনার ব্যবসার সম্প্রসারণ ঘটিয়ে পণ্যের প্রচারণা করতে পারেন।

এছাড়া সেই ভিডিওতে আপনার নিজের ওয়েবসাইটে লিংক দিতে পারেন। নিজের পণ্যের Promotional Video করে আপনার

পণ্য বিক্রি যেমন বাড়াতে পারবেন, তেমনি অন্যভাবে ইনকামও করতে পারবেন।

৮) রেফারের মাধ্যমে

আপনি Tiktok Rewards রেফারেল প্রগ্রামের মাধ্যমে অন্যদের Join করিয়ে ইনকাম করতে পারবেন। Referral link আপনার বন্ধুদের মাধ্যমে শেয়ার করে, তারা যুক্ত হলে আপনি reward points এর মাধ্যমে ইনকাম করতে পারবেন।

৯) Premium Paid content এর মাধ্যমে

আপনি আপনার একাউন্টের অনেক কন্টেন্ট ফ্রিতে না দেখিয়ে, তা Premium content আকারে সেট করতে পারেন। এতে আপনার সেই কন্টেন্ট দেখতে Subscription করে দেখতে হবে, এমন ব্যবস্থা থাকবে।

আপনি Patreon সাইটের মাধ্যমে এভাবে Subscribe সিস্টেম চালু করে টাক ইনকাম করতে পারবেন।

১০) ওয়েবসাইটের ফ্রি ট্রাফিক থেকে ইনকাম

আপনি আপনার ওয়েবসাইটের ফ্রি ট্রাফিক পেতে এই প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করতে পারেন। আপনার যদি অনেক Followers থাকে, তাহলে আপনি আপনার ভিডিও আপনার ওয়েবসাইটে লিংক শেয়ার করে ফ্রি ট্রাফিক পেতে পারেন।

এটা Blog, ecommerce, Bussiness ইত্যাদি সাইট হতে পারে। এভাবে আপনার আপনার ব্যবসার ইনকাম বাড়িয়ে নিতে পারবেন।

১১) Tiktok Shop এর মাধ্যমে

Tiktok Shop হল একটি Tools. আপনি  Bussiness account থেকে সহজেই এই Tool ব্যবহার করতে পারবেন। এর মাধ্যমে আপনি আপনার প্রডাক্টের Showcase বানাতে পারবেন। এখানে

আপনি আপনার অ্যাফেলিয়েট সাইটের পণ্য বিক্রি করে ইনকাম করতে পারবেন।

টিকটক থেকে টাকা ইনকাম করার কয়েকটি টিপস

১) অরিজিনাল কন্টেন্ট দেওয়াঃ

আপনি যদি ভাল মানের ইনকাম করতে চান, তাহলে অবশ্যই আপনাকে অরিজিনাল কন্টেন্ট আপলোড করতে হবে।

অন্যের কন্টেন্ট চুরি করে কখনোই আপলোড করা যাবেনা।

২) নিয়মিত ভিডিও আপলোড করাঃ

আপনাকে নিয়মিয় কন্টেন্ট আপলোড করতে হবে।

অনেক দিন পর পর কন্টেন্ট আপলোড করলে আপনার কন্টেন্টের রিচ কমে যাবে ও ভিডিও ভাইরাল হওয়ার প্রবণতা কমবে।

৩) নির্দিষ্ট সময়ে ভিডিও আপলোডঃ

একটি নির্দিষ্ট সময়ে ভিডিও দিলে আপনার ফলোয়ারেরাও জেনে যাবে যে, সেই সময়ে আপনার কন্টেন্ট আসবে।

এতে করে একসাথে অনেকে ভিডিও দেখলে আপনার ভিডিওটি র‍্যাংক করবে।

৪) আপনার বিষয়বস্তুর ভিডিও এর উপর জোর দিনঃ

আপনি যদি সকল কন্টেন্টই স্পন্সর হিসেবে প্রমোট করাতে থাকেন, তাহলে আপনার দর্শকেরা বিরক্ত হবেন।

তাই আপনার অরিজিনাল বিষয়বস্তুর কন্টেন্টের উপর জোর দিন।

৫) আপনার প্রিয় কন্টেন্ট ক্রিয়েটরদের ফলো করুনঃ

অন্য জনপ্রিয় কন্টেন্ট ক্রিয়েটরেরা কিভাবে ভিডিও বানাচ্ছে ও কোন পদ্ধতিতে ইনকাম করছে তা অনুসরণ করুন।

FAQ:

টিকটক থেকে কিভাবে ইনকাম করা যায়?

একজন ক্রিয়েটর এখান থেকে খুব সহজেই ইনকাম করতে পারবেন।

তবে ইনকাম করার পূর্বে এটা খেয়াল রাখতে হবে যেন, ভিডিওতে অনেক অনেক ভিউ হয়।

এখানে অ্যাফেলিয়েট প্রোগ্রাম, নিজের পণ্য বিক্রি, স্পন্সরশীপ, অ্যাডের মাধ্যমে, রেফার করে, Gifts এর মাধ্যমে ইত্যাদি নানা উপায়ে ইনকাম করা যায়।

টিকটক থেকে আয় করার জন্য কত Followers প্রয়োজন?

আপনার মাত্র ১০০০ ফলোয়ার হলেই আপনি গিফটের মাধ্যমে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

এছাড়া টাকা ইনকামের এমন অনেক মাধ্যম আছে, যেখানে কোন ফলয়ারের নির্দিষ্ট সীমা নেই। আর creativity program এর জন্য ১০ হাজার ফলোয়ার হতে হয়।

শেষকথা

টিকটক থেকে টাকা ইনকাম করার জন্য অনেক পরিশ্রম করতে হয়। সময় দিতে হয়। এভাবে আপনার ফলোয়ার বাড়ে। আর ফলোয়ার বাড়লে আপনার ইনকাম বাড়বে নিশ্চিত।

আপনার উচিত হবে অন্যের ভিডিও কপি না করে, আলাদা কিছু করা। তবেই আপনি এখানে সফল হতে পারবেন।

পোস্টটি শেয়ার করুন-