গুগল বিজনেস ইমেইল হল এমন এক ইমেইল যাতে ইমেইল অ্যাড্রেসের সাথে ওয়েবসাইটের নাম লেখা থাকে। যেমনঃ info@domain.com। এই ইমেইল সাধারণত ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। কোন একটি ব্যবসার জন্য একসাথে একই ওয়েবসাইট অ্যাড্রেসের অনেক ইমেইল অ্যাড্রেস হতে পারে। যেমনঃ info@igone.com, user1@igone.com, user2@igone.com ইত্যাদি।

গুগল বিজনেস ইমেইল (G suite) এর জন্য কি কি লাগে

এটি গুগলের একটি সার্ভিস। এর মাধ্যমে আপনি আপনার ওয়েবসাইটের নাম যুক্ত করে ইমেইল অ্যাড্রেস বানাতে পারবেন।

এর মাধ্যমে আপনি আপনার একটি ওয়েবসাইটের জন্য একাধিক ইমেইল তৈরি করতে পারবেন। তবে প্রতিটি ইমেইলের জন্য আপনাকে আলাদা আলাদা টাকা দিতে হবে। এর জন্য লাগে-

১. একটি ডোমেইন

২. ডোমেইন প্রভাইডার

৩. ক্রেডিট কার্ড

কেন বিজনেস ইমেইল খুলতে হয়

  • ব্যবসার প্রতি কাস্টমারদের বিশ্বাস বাড়াতে।
  • একটি পরিচ্ছন্ন ব্যবসা করতে
  • একসাথে একাধিক কাস্টমারের প্রচুর ডাটা রাখতে। যা সাধারণ জিমেইল দিয়ে সম্ভব হয় না।

কিভাবে গুগল বিজনেস ইমেইল খুলতে হয়

গুগল বিজনেস ইমেইল

How to set up Google Workspace business email?

 

এটি গুগল ওয়ার্ক স্পেস (Workspace) নামে পরিচিত। গুগল বিজনেস ইমেইলের জন্য ৬, ১২, ১৮ ডলারের বিভিন্ন প্যাকেজ আছে। এটি Starter, Standard, Business plus নামে পরিচিত। এছাড়া ব্যবসা প্রতিষ্ঠান অনেক বড় হলে Enterprise প্যাকেজও আছে। দেখে নিন কিভাবে এটি খুলতে হয়-

১. প্রথমত এই লিংকে ক্লিক করতে হবে।

২. এরপর Get started বাটনে ক্লিক করতে হবে।

৩. এরপর আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নাম, কর্মচারি সংখ্যা, দেশ সেট করে next বাটনে ক্লিক করতে হবে।

৪. এরপর আপনার নাম ও আপনার যেকোন একটি জিমেইল অ্যাড্রেস দিয়ে next বাটনে ক্লিক করতে হবে।

৫. নতুন পেজে এসে আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ডোমেইনের নাম দিতে হবে।

৬. এরপর আপনার বিজনেস ইমেইলের জন্য আপনার ইউজার নাম ও পাসওয়ার্ড দিয়ে agree and continue বাটনে ক্লিক করতে হবে।

৭. এবার go to setup বাটনে ক্লিক করতে হবে। এরপর নতুন বিজনেস ইমেইল ও পাসওয়ার্ড নতুন ইমেইলে প্রবেশ করতে হবে।

৮. এরপর Admin Console এ প্রবেশ করতে হবে। এখান থেকে সবার প্রথমে ডোমেইনটিকে ভেরিফাই করতে হবে। এর জন্য ডোমেইনের ড্যাশবোর্ডে যেয়ে ওয়েবসাইটে দেওয়া txt লেখাটি কপি করে নিতে হবে। এরপর ডোমেইনের DNS ম্যানেজমেন্ট থেকে Add new record এ ক্লিক করে txt record সিলেক্ট করে কপি করা txt লেখাটি পেস্ট করে দিতে হবে। এতে করে ডোমেইনটি ভেরিফাই হয়ে যাবে।

৯. ডোমেইনটি অ্যাক্টিভ করার জন্য activate বাটনে ক্লিক করতে হবে। আপনি চাইলে add new user বাটনে ক্লিক করে নতুন নতুন ইউজার অ্যাড করাতে পারেন। সেক্ষেত্রে প্রত্যেক ইউজারের জন্য আলাদা
আলাদা চার্জ প্রযোজ্য হবে।

১০. এরপর ওয়েবসাইটে দেওয়া mx record গুলি ডোমেইন প্রভাইডারে mx record আকারে সেট করতে হবে।

১১. এরপর আপনার বিজনেস ইমেইল চালু হয়ে যাবে। যা ১৪ দিনের ফ্রী ট্রায়াল দিবে। এরপর আপনি চাইলে আপনার Billing সেট করে পুরোপুরিভাবে গুগল বিজনেস জিমেইল সেট করতে পারবেন।

শেষকথা

সবশেষে এই কথাই বলা যায়। গুগল ওয়ার্ক স্পেস (Workspace) অন্যান্য ইমেইল সার্ভিসের তুলনায় অনেক সহজ ও সস্তা। আর এদের সার্ভিসে সধারণত কোন সমস্যা হয়না। তাই আপনারা গুগলের এই ইমেইল সার্ভিস ব্যবহার করতে পারেন।

পোস্টটি শেয়ার করুন-