ফেসবুক পোস্টে ও সংবাদ সম্মেলন করে ধর্ষণ এবং হত্যাচেষ্টার অভিযোগ এনেছেন চিত্রনায়িকা পরীমণি। এ ঘটনায় মামলা করেছেন চিত্রনায়িকা পরীমণি। সোমবার সকালে সাভার মডেল থানায় তিনি এই মামলা করেন।

তবে এ ঘটনা ঘটার পর পরীমণি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খানের কাছে অবহিত করে সাহায্য চেয়েও পাননি বলে জানান। একই সঙ্গে পরিচালক সমিতির সাবেক সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজারের কাছেও পরী গিয়েছিলেন সাহায্যের জন্য। কিন্তু তাদের উভয় কোনো সাহায্য করেননি বলে রোববার নিজের বাসায় ডাকা সংবাদ সম্মেলেন জানান পরী। 

Advertisement

সংবাদ সম্মেলনে পরীমনি বলেন, ‘শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খানের কাছে ঘটনাটি জানিয়েছি। তিনি শুধু দেখছি বলে আমাকে ঘুরিয়েছে। কিন্তু কোনো সাহায্য করেননি। পরিচালক সমিতির সাবেক সভাপতিকেও জানাই বিষয়টি। তিনিও কিছু করেননি।’

পরী আরও জানান, নায়িকা পরীমণি হয়ে নয় এই চারদিন আমি সাধারণ মেয়ে হয়ে আমার সাথে ঘটা ঘটনার বিচার চেয়েছি। 

এদিকে আজ জায়েদ খান পরীমনির পাশে শিল্পী সমিতি রয়েছেন বলে জানিয়েছেন। গণমাধ্যমে জায়েদ খান বলেন, যেহেতু মামলা হয়েছে। সরকারের প্রতি আমাদের পূর্ণ আস্থা রয়েছে। আমরা চাই সুষ্ঠু তদন্ত করে অপরাধী ব্যক্তিকে শাস্তি দেওয়া হোক। আমাদের শিল্পী সমতি সর্বদা শিল্পীদের পাশে ছিলো, আছে থাকবে। পরীমণির পাশেও শিল্পী সমিতি রয়েছে।

পরীমণি আপনার সাহায্য চেয়েও পাননি বলে জানিয়েছেন। এটার সত্যতটা কতটুকু? প্রশ্ন করলে জায়েদ খান বলেন, পরীমণি আমার কাছে ন কোনো সাহায্য চাননি। তিনি তো আমার কাছে বিচারও চাননি। তিনি আইজিপি মহোদয়ের সঙ্গে দেখা করিয়ে দিতে বলেছে।  এর জন্য আমি সময় দিতে বলেছি। সে আমাকে বৃহস্পতিবার বলেছে এরপর তো শুক্র ও শনিবার । আমি বলেছি, রোববার জানাবো। আমি তো এ বিষয়ে আইজিপির অনুমতি চাইবো। তার সঙ্গে দেখা করা তো ছেলে খেলা নয়। এটার জন্য অনুমতি লাগবে। পরী এটাকেই বলছে সাহায্য করিনি। তবে শিল্পী সমিতি পরীর পাশে আছে। এটা আবারও জানাচ্ছি আমি।

Advertisement