হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার মীরনগর গ্রামে তৃতীয় লিঙ্গের মিথিলাকে পিটিয়ে আহত করেছেন তার স্বামী ও শ্বশুর-শাশুড়ি। আহত অবস্থায় তাকে বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছেন তারা। এ ঘটনায় নির্যাতনকারীদের বিরুদ্ধে মাধবপুর থানায় অভিযোগ করেছেন মিথিলা।

সোমবার দুপুরে সাংবাদিকদের মিথিলা জানান, তার বয়স এখন ২৪ বছর। মাধবপুরের ধর্মঘর রসুলপুর গ্রামে তার জন্ম। বেড়ে ওঠার সঙ্গে তার শারীরিক পরিবর্তন হওয়ায় ২০০৭ সালে বাড়ি ছাড়েন তিনি। ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের উদয়পুরে তৃতীয় লিঙ্গের একটি দলের সঙ্গে ছিলেন। ২০১৩ সালে দেশে ফিরে আসেন। মাধবপুর পৌরশহরে হাজী বাড়িতে ছোট একটি ঘর নিয়ে থাকতেন। ২০১৭ সালে পরিচয় হয় মীরনগর গ্রামের মিছির আলীর ছেলে মাসুম মিয়ার সঙ্গে। একে অপরকে ভালোবেসে ২০১৯ সালে বিয়ে করেন তারা।

Advertisement

মিথিলা আরও জানান, তাদের সংসার ভালোই চলছিল। স্বামীর কাজ ছিল। তিনিও অটোরিকশা চালাতেন। তবে তাকে বিয়ে করায় স্বামী মাসুমকে আত্মীয়-স্বজন ও পাড়াপ্রতিবেশীদের কটু কথা শুনতে হতো। পরিবারের চাপে মাসুম বেশি আয়ের প্রলোভন দিয়ে তিন বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে কৌশলে তাকে ভারতে পাঠিয়ে দেন। ভারতে গিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম থেকে তিনি জানতে পারেন, মাসুম অন্য কাউকে বিয়ে করেছেন। অনেক কষ্টে ৩ জুলাই দেশে ফিরে আসেন তিনি।

সাংবাদিকদের মিথিলা জানান, গত রোববার সন্ধ্যায় শ্বশুরবাড়ি গেলে মাসুম, তার নববধূ ও শ্বশুর মিছির আলী, শাশড়ি নূরজাহান মিলে তাকে পেটায়। গ্রামবাসী তাকে উদ্ধার করে মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেপে পাঠায়। তার ওপর নির্যাতনের বিচার চান তিনি।

মাসুমের বাবা মিছির আলী বলেন, মিথিলার সঙ্গে মাসুমের কী হয়েছে তা আমাদের জানা নেই। আমাদের বিরুদ্ধে তার অভিযোগ সত্য নয়।

মাধবপুর থানার এসআই ফজলে রাব্বি জানান, মিথিলার লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Advertisement