এখনও আনুষ্ঠানিক ঘোষণা না দিলেও টাইগার টি-২০ অধিনায়ক ৩৫ বছর বয়সী মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ হারারেতে ক্যারিয়ারের শেষ টেস্ট খেলেছেন। ২২০ রানে জয়ী ম্যাচে হার না মানা ১৫০ রানের ইনিংস খেলে অবসরের ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

এই টেস্ট খেলেই অবসর নেবেন বলে ড্রেসিংরুরে আভাস দিয়েছিলেন রিয়াদ। ফর্মের তুঙ্গে থেকে তিনি কেন এমন সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছেন তা নিয়ে বিস্মিত দেশের ক্রিকেটমহলের অনেকেই। তার অবসরের ঘোষণা শুরুতে মেনে নিতে পারেনি বিসিবিও। এসবের মাঝেই টেস্ট শেষ হওয়ার পর শুরু হচ্ছে সীমিত সংস্করণের ক্রিকেট। ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি দলের অপরিহার্য সদস্য মাহমুদুল্লাহ। তবে ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল জানালেন, রিয়াদের অবসরের রেশ কাটিয়ে উঠেছে টিম।

Advertisement

ম্যাচের আগে ভার্চুয়ালি গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে প্রশ্নের জবাবে তামিম বলেন, ‘আমার কাছে মোটেও এমন মনে হয়নি। এটা একজনের ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত, এটাকে সম্মান জানাতে হবে। এখানে হ্যাংওভার বা হতাশ হওয়ার কোনোকিছু নেই। আমরা এ ব্যাপারে খুব বেশি কথা বলতে চাই না। রিয়াদ ভাই আমাদের দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য। আমরা এখন দলের পারফরম্যান্সেই মনোযোগ রাখছি। এটা শুধু বলার জন্য বলছি না। আমাদের সাথে থাকলে বুঝতেন আসলেই এটা নিয়ে আমরা একফোঁটা চিন্তিত না। এটা নিয়ে নতুন করে কিছু বলার নেই আর সামনেও বলার কিছু থাকবে না। যা হওয়ার হয়ে গেছে।’

টেস্ট শেষে বাংলাদেশ দল ২দিন প্র্যাকটিস করলেও, ছিলেন না মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। দলের একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচেও খেলেননি তিনি। এর কারণ কি? এমন প্রশ্নের জবাবে ওয়ানডে অধিনায়ক বলেন, ‘না না ভাই কোনো কারণ নেই। টেস্টে পাঁচটা দিন খুব কষ্ট করতে হয়েছে। এজন্য টেস্ট ম্যাচের পরের দিন কেউ প্র্যাকটিসে যায় না। যদি না টেস্ট ম্যাচটা কারও খুব খারাপ যায়। প্র্যাকটিস ম্যাচের সময় উনি বিশ্রাম নিতে চেয়েছেন বা আলাদাভাবে বিশেষ কোনো কাজ করতে চান। কাল (বুধবার) অনেক লম্বা সময় নেটে প্র্যাকটিসও করেছেন। এটা তাই উনার ব্যক্তিগত ইচ্ছা ছিল। তবে কোনো সমস্যা নেই, সবকিছু ঠিক আছে।’

Advertisement