অকালে চুল পেকে যাওয়া খুবই জটিল একটি সমস্যা। কম বয়সে চুল পেকে গেলে দেখতে বুড়োর মত দেখায়। আর চুল একবার পাকতে শুরু করলে তা একে একে পাকতেই থাকে। আর এই পাকা চুল কালো করতে অনেকে চুলের বিভিন্ন কালার বা কলব ব্যবহার করে থাকে। আর এতে চুল পাকার গতি আরো বেড়ে যায়। নানা কারণে এই চুল অকালে পাকতে পারে। অকাল চুল পাকা বলতে সাধারণত বোঝায় যাদের বয়স ৪০ বছর হবার আগেই পেকে যায়।

এখন দেখে নেই কি কি কারণে এই চুল পাকেঃ

Advertisement

চুল সবথেকে বেশি পাকে বংশগত কারণে। পিতা বা মাতা কারো বংশে অল্প বয়সে চুল পাকার সমস্যা থাকলে চুল অকালে পেকে যেতে পারে। এছাড়া অতিরিক্ত মানসিক চাপ, দুশ্চিন্তা ও উচ্চ রক্তচাপের কারণেও চুল পাকতে পারে। এছাড়া অধিক ধুমপান, বিটামিন বি ১২ এর ঘাটতি, থাইরয়েড রোগ এই সব কারণে চুল অকালে পেকে যায়। তবে অকালে চুল পাকলেও চিন্তা ঘরোয়া পদ্ধতিতে প্রাকৃতিক উপায়ে পাকা চুল কালো করা যায়।

দেখে নেই প্রকৃতিক উপায়ে পাকা চুল কালো করার উপায়ঃ

মানসিক চাপ মুক্ত থাকাঃ

পৃথীবিটা খুব অল্প সময়ের। আর এই অল্প সময়ের পৃথীবিতে এত মানসিক চাপ নেওয়ার কিছুই নেই। এই মানসিক চাপ ও দুশ্চিন্তা থেকে নানা রকম রোগের উৎপত্তি হয়। এদের মধ্যে চুল পাকা সমস্যা অন্যতম।
তাই অকালে চুল পাকা রোধে শত বিপত্তির মাঝেও মানসিক চাপ মুক্ত থাকতে হবে।

ধুমপান না করাঃ

গবেষণায় যে সকল পুরুষের অকালে চুল পেকে গেছে, তাদের মধ্যে অনেকে বেশি মানুষের চুল পেকে গেছে শুধুমাত্র ধুমপানের অভ্যাস থাকার জন্য। তাই ধুমপানের অভ্যাস ত্যাগ করতে হবে চুল ক্রমাগত পেকে যাওয়া রোধে।

চুলের জন্য ক্ষতিকর ক্যামিকেল যুক্ত পন্য ব্যবহার না করাঃ

বিভিন্ন কেমিক্যালযুক্ত চুলের রং, কেমিক্যাল যুক্ত শ্যাম্পু, কন্ডিশনার ব্যবহারের ফলে চুল খুব দ্রুত পাকতে শুরু করে। তাই এই সকল ক্ষতিকর পন্য ব্যবহার থেকে বিরত থাকতে হবে। এই সকল পন্য ব্যবহার বন্ধ করলে আবার চুলের আসল রং ফিরে আসা শুরু করবে।

অ্যান্টি অক্সিডেন্ট সম্পন্ন খাবার খাওয়াঃ

অ্যান্টি অক্সিডেন্ট সম্পন্ন খাবার, যেমন- তাজা ফল, শাকসবজি, গ্রীন টি, মাছ, বাদাম, অলিভ ওয়েল, ডিম, ভিটামিন বি ১২ – এই খাবার গুলি বেশি করে খেতে হবে। এতে চুল সহজে পেকে যাবে না।

চুল পাকা রোধে বাদাম তেল ও লেবুর ব্যবহারঃ

২ চামচ বাদাম তেল ও ৩ চামচ লেবুর রস একসাথে মিশিয়ে এটি মাথার স্ক্যাল্পে লাগাতে হবে। এরপর ৩০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলতে হবে। এভাবে এটি সপ্তাহে ৩ দিন করতে হবে। বাদাম তেলে রয়েছে ভিটামিন ই আর লেবুতে রয়েছে ভিটামিন সি। এগুলো চুলের পুষ্টি জন্য খুবই গুরত্বপূর্ণ। এটি চুলকে পেকে যাওয়ার হাত থেকে রক্ষা করে।

পেয়াজের রসঃ

পেয়াজের রস পাকা চুল কালো করার খুব ভাল উপাদান। ২-৩ চামচ পেয়েজের রসের সাথে ১ চামচ লেবুর রস ও ১ চামচ ওলিভ অয়েল মিশিয়ে মাথার স্ক্যাল্পে ও চুলে মাখতে হবে। এরপর এটি খুব ভাল করে মাথার স্ক্যাল্পে ম্যাসাজ করতে হবে। এটা এনজাইম বৃদ্ধি করে চুলকে কালো করতে খুবই কাজে দেয়। এছাড়া এটি চুলের বৃদ্ধিতেও খুব কার্যকর।

নারিকেল তেল, আমলা তেল ও খাঁটি ঘি এর ব্যবহারঃ

২ চামচ নাতিকেল তেল, ১ চামচ আমলা তেল ও আধা চামচ ঘি একসাথে মিশিয়ে চুলে ও স্ক্যাল্পে রাতে শোবার আগে প্রয়োগ করে সকালে ভাল করে ধুয়ে ফেলতে হবে। এটি পাকা চুল কালো করতে খুবই কার্কর। এইভাবে
প্রতি সপ্তাহে একবার করতে হবে।

Advertisement