গ্যাস্ট্রিক সমস্যায় প্রতিনিয়ত আমরা ভুগে থাকি। আর জন্য আমরা ওষুধের উপর নির্ভরশীল হই। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে ওষুধের উপর নির্ভর হয়ে থাকে মোটেও ঠিক নয়। তাই এই সমস্যা কিছু সহজ ও প্রাকৃতিক উপায়ে আমাদের ঠিক করা উচিত। এছাড়া কিছু লাইফস্টাইলের পরিবর্তনের মাধ্যমে এই সমস্যা দূর করা যায়।

কেন আমাদের গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হয়ে থাকেঃ

গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় আমরা সাধারণত খুবই অস্বস্থি অনুভব করি। নানা কারণে এই সমস্যা হয়ে থাকে। অনেকে সময় এই সমস্যায়া আমাদের বুকেও প্রচন্ড ব্যাথা অনুভূত হয়। সাধারণত হজম প্রক্রিয়ার গন্ডগোলের জন্য এই সমস্যা বেশি হয়ে থাকে। কি কি কারণে এই সমস্যা হতে পারে দেখে নিনঃ

১। সবসময় ধুমপান করার ফলে।

২। চুইং গাম খাওয়ার ফলে।

৩। অতিরিক্ত কমল পানীয় পান করার ফলে।

৪। অতিরিক্ত রং ব্যবহার করা হয়েছে এমন খাবার খেলে।

৫। আর্টিফিসিয়াল টাইপের মিষ্টি জাতীয় খাবার খেলে

৬। এছাড়াও শরীরের অভ্যন্তরীন কিছু জটিলতার জন্য এই সমস্যা হয়ে থাকে।

গ্যাস্ট্রিক সমস্যা থেকে দূরে থাকতে কি কি বিষয় খেয়াল রাখতে হবেঃ

১। যেসকল খাবারে গ্যাস হয় সেই সকল খাবার এড়িয়ে চলতে হবে। ফলের মধ্যে আপেল, নাশপাতি খাওয়া যাবে না। সবজির মধ্যে ব্রকলি ও কাঁচা পেয়াজ। এছাড়া দুধ, পনির, আইস্ক্রিম এড়িয়ে চলতে হবে।

২। খাওয়ার ৩০ মিনিট আগে পানি পান করতে হবে।

৩। তাড়াহুরো করে কোন কিছু না খেয়ে ধীরে ধীরে খাবার খেতে হবে ও পানীয় পান করতে হবে।

৪। চুইংগাম ও ধুমাপানের অভ্যাস ত্যাগ করতে হবে।

৫। আর্টিফিসিয়াল রঙ্গিন মিষ্টি জাতীয় খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে।

৬। কোন খাওয়ার সময় বসে খেতে হবে।

৭। ভারী খাবার খাওয়ার পর হাঁটার অভ্যাস করতে হবে।

যে পদ্ধতিতে গ্যাস্ট্রিক সমস্যা তৎক্ষনাৎ দূর করা যায়ঃ

১। গ্যাসের ব্যাথা উঠলে আদা চা খান, ব্যাথা অনেকটাই কমে যাবে।

২। গ্যাসের সময় লেবুর শরবত খুবই ভাল কাজ করে। তবে পানি হালকা কুসুম গরম হলে সবথেকে ভাল হয়।

৩। পুদিনার জুসও গ্যাসের সমস্যায় দুর্দান্ত কাজ করে।

৪। ওমেগা ৩ যুক্ত তিসি ওটসের সাথে মিশিয়ে খেতে হবে। এতে গ্যাসে অনেক উপকার পাওয়া যাবে।