চুল কিভাবে ঘন করা যায়, এই প্রশ্নটা একটি কোটি টাকার প্রশ্ন। কারণ সকলেই তাদের চুলকে ঘন করতে চায়। বিভিন্ন প্রাকৃতিক উপায়ে চুল ঘন করা যায় ও চুল পড়া কমানো যায় ও নতুন চুল গজানোর ব্যবস্থা করা যায়। বিভিন্ন কেমিক্যাল ট্রিট্মেন্টের মাধ্যমে চুল ঘন করা সম্ভব হয় না। এর জন্য ঘরোয়া বিভিন্ন উপায়ে চুল ঘন করা সম্ভব হয়ে থাকে। দেখে নিন কি কি প্রাকৃতিক ঘরোয়া উপায়ে চুল ঘন করা যায়ঃ

ডিমঃ

Advertisement

ডিম হল চুলের খুব জন্য ভাল প্রোটিন। ডিম যেমন নতুন চুল গজাতে ও চুলকে ঘন করতে সাহায্য করে, ঠিক তেমনি এটি চুলের বৃদ্ধিকেও ত্বরান্বিত করে। তাই এর জন্য মাথার চুলে ডিম দেওয়া যেতে পারে।
১-২ টি ডিম ভেঙ্গে নিয়ে ভালভাবে বিটার দিয়ে বিট করে এটি মাথার চুলে ও স্ক্যাল্পে প্রয়োগ করতে হবে। এরপর ৩০ মিনিট অপেক্ষা করে শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলতে হবে। এটা সপ্তাহে ১-২ দিন করতে হবে।

ফাটা চুল কেটে ফেলাঃ

চুলের অগ্রভাগে নানা কারণে চুল ফেটে যায়, এটা চুলের জন্য খুবই খারাপ। কারণ এর জন্য চুলের ঐ অংশে পুষ্টি পায় না। আর চুলটি খারাপ হয়ে যায়। তাই চুলের অগ্রভাগে ফেটে গেলে তা কেটে ফেলতে হবে।

চুল ঘন করার প্রয়োজনীয় তেল ব্যবহার করাঃ

চুল ঘন করার জন্য ল্যাভেন্ডার ওয়েল, রোজমেরী ওয়েল, টি ট্রি ওয়েল, অলিভ ওয়েল- এই তেল্গুলি ব্যবহার করতে হবে। এই তেলগুলি মাথার স্ক্যাল্পের রক্ত সঞ্চালণ বৃদ্ধি করে। মাথার স্ক্যাল্পকে ময়েশ্চারাইজ রাখে। চুল ব্রেকডাউন হতে বাধা দেয়। নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে।

কলার মাস্কঃ

কলার কোলাজেন চুলকে মজবুত ও ঘন করতে খুবই কার্যকর। একটি পাকা কলা চটকিয়ে পেস্ট করে এর মধ্যে ২ চামচ অলিভ ওয়েল নিয়ে এটি মাথার স্ক্যাল্পে মাখতে হবে। ২০ মিনিট রেখে দিয়ে শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলতে হবে। এটি সপ্তাহে ২ দিন করতে হবে।

মেথিঃ

কিছুটা মেথি নিয়ে সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রেখে সকালে ব্লেন্ড করে পেস্ট করে নিয়ে এর সাথে ২ চামচ ক্যাস্টর ওয়েল নিয়ে মিশিয়ে এটি মাথার চুলে ও স্ক্যাল্পে লাগিয়ে ৩০ মিনিট পর শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার মেখে ধুয়ে ফেলতে হবে। এটি নিয়মিত ব্যবহারে চুল ঘন হওয়ার সাথে সাথে চুলের সব খুশকী দূর হয়ে যাবে আর চুলের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে। আর চুলকে অনেক ময়েশ্চারাইজ করবে।

Advertisement