কিসমিস খাওয়ার উপকারিতার কথা বলে শেষ করা সম্ভব না। এটি খেতে যেমন সুস্বাদু তেমনি এর প্রচুর গুণ রয়েছে। এটি সাধারনত বিভিন্ন খাবারের পরিবেশণ করতে ও খাবারের স্বাদ বৃদ্ধি করতে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। যেমন সেমাই, পায়েস, আইসক্রিম, ওটস্‌, পাউরুটি, কেক ইত্যাদি নানা খাবারে এটি যোগ করা হয়ে থাকে। এছাড়া এটি এমনিও খাওয়া হয়ে থাকে। আসলে এটি আঙ্গুরকে বিশেষ পদ্ধতিতে শুকনো করে তৈরি করা হয়ে থাকে।

Advertisement

কিসমিসে কি কি থাকেঃ

কিসমিসে যথেষ্ট পরিমাণ প্রাকৃতিক সুগার ও ক্যালরি রয়েছে। যা আমাদের শরীরের জন্য খুবই কার্যকরি। এছাড়া এতে ফাইবার, ভিটামিন, কপার, পটাশিয়াম, মিনারেল সহ অনেক পুষ্টিকর উপাদান রয়েছে। এতে রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণ আয়রন। এছাড়া এতে ক্যালশিয়াম, অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ও অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল কম্পাউন্ড রয়েছে।এখন দেখে নিন কেন নিয়মিত কিসমিস খাওয়া উচিতঃ

কোষ্ঠকাঠিন্য ও গ্রাস্টিকের সমস্যাও দূর করেঃ

কিসমিসে রয়েছে ফাইবার। আর এটি আমাদের হজম প্রক্রিয়াকে খুবই ত্বরান্বিত করে। যার ফলে এটি নিয়মিত খেলে আমাদের কোষ্ঠকাঠিন্য সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এছাড়া এটি গ্রাস্টিকের সমস্যাও দূর করে।

প্রাকৃতিকভাবে ওজন বৃদ্ধিঃ

নিয়িমিত কিসমিস খেলে আমাদের একটি সুন্দর হেলথ্‌ প্রক্রিয়ায় প্রাকৃতিকভাবে ওজন বৃদ্ধি পায়, যাতে আমাদের শরীরের কোন ক্ষতি হয় না। কারণ এর সুগার প্রাকৃতিক হওয়ায় এটি শরীরে কোলেস্টরেল হতে দেয় না। আর আমাদের দেখতে
অনেক হেলদি ও ফিট দেখায়।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বৃদ্ধিঃ

কিসমিসে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন ও মিনারেল ও অ্যান্টি অক্সিডেন্ট থাকায় এটি আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বৃদ্ধি করে থাকে। এটি আমাদের শরীরকে বিভিন্ন ইনফেকশনের হাত থেকে রক্ষা করে থাকে।

ব্যথা নিরাময়ঃ

নিয়িমিত কিসমিস খেলে আমাদের বাত ব্যথাসহ শরীরের বিভিন্ন ব্যথা ভাল হতে পারে। কারণ কিসমিসে আছে ভিটামিন সি ও অ্যান্টি অক্সিডেন্ট।

শান্তিপূর্ণ ঘুমঃ

নিয়মিত কিসমিস খেলে আমাদের রাতে খুব ভাল শান্তিপূর্ণ ঘুম হতে পারে। কারণ কিসমিসে রয়েছে আয়রন, যা রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বৃদ্ধি করে সুন্দর সুন্দর ও আরামদায়ক ঘুম নিশ্চিত করে।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণঃ

কিসমিসের মধ্যে থাকা পটাশিয়াম আমাদের ব্লাড প্রেসারকে নিয়ন্ত্রণে রাখে ও হাইপারটেনশন থেকে মুক্ত রাখে।

ক্যান্সার প্রতিরোধেঃ

কিসমিসের মধ্যে থকা অ্যান্টি অক্সিডেন্ট আমাদের শরীরে টিউমার ও ক্যান্সার হওয়া থেকে রক্ষা করে।

স্বাস্থ্যবান দাঁতঃ

কিসমিসের অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল কম্পাউন্ড আমাদের মুখের ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়াকে ধ্বংস করে দাঁত ও মাড়ির উন্নতি সাধন করে থাকে।

এছাড়া নিয়মিত কিসমিস খেলে আমাদের চোখ ভাল থাকে, আমাদের শরীরের হাড় সুগঠিত ও মজবুত হয়। এছাড়া এটি ত্বককে সুন্দর করে ও চুলের পুষ্টির বাড়ায়।

Advertisement