মুসলিম নারীদের বোরকা পরা নিষিদ্ধ হচ্ছে শ্রীলঙ্কায়। সেই সাথে এক হাজারেরো বেশি মাদ্রাসা বন্ধ করে দেওয়া হবে দেশটিতে। বিবিসিকে এক সাক্ষাৎকার কালে শ্রীলংকার এক মন্ত্রী বলেন জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

শ্রীলঙ্কার জননিরাপত্তা মন্ত্রী শারথ বীরাসেকারা বলেন, এ সংক্রান্ত মন্ত্রিসভার আদেশে তিনি স্বাক্ষর করেছেন। বিষয় দুটি এখন শুধু পার্লামেন্টে সংসদ সদস্যদের অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে। নিষেধাজ্ঞার আদেশ খুব শিগগিরই কার্যকর হবে বলে আশা করছেন কর্মকর্তারা।

Advertisement

শ্রীলঙ্কার জননিরাপত্তা মন্ত্রী আরো জানান, বর্তমান সময়ে বোরকা ধর্মীয় উগ্রবাদের অন্যতম প্রতীক হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই এটিকে নিষিদ্ধ করা প্রয়োজন।

এর আগে ২০১৯ সালে করেকটি গির্জার উপর এক সিরিজ বোমা হামলা চালানো হয়। তারপর দেশটিতে মেয়েদের বোরকা সাময়িক নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। কিন্তু এবার বোরকা আজীবনের জন্য নিষিদ্ধ করা হবে। সেই সময় ঐ হামলায় ২৫০ জন শ্রীলংকান নাগরিক নিহত হয়েছিল। রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, এই ধরনের সিদ্ধান্ত মোটেও কাম্য নয়। এই সিদ্ধান্ত সংখ্যালঘু মুসলিমদের ওপর প্রভাব ফেলতে পারে।

শ্রীলঙ্কান সরকার এর আগেও মুসলিম বিরোধী নানা কার্যকম করে। যা মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভূতিতে ব্যাপক আঘাত হানে। গত বছর সরকার নিয়ম করেছিল, করোনায় কোন মুসলমান মারা গেলে তাকে কবর দেওয়ার পরিবর্তে দাহ করা হবে। আর এর ফলে বিশ্বে এটা নিয়ে নিন্দার ঝড় উঠেছিল। তবে এরপর অবশ্য দেশটির সরকার এই নিয়ম বন্ধ করে দিয়েছিল।

Advertisement