গত বছরের ১২ এপ্রিল ‘ইউনিভার্সাল গ্রুপ’ নামের একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের দুই কর্মকর্তার কাছে কোটি টাকারও বেশি ঘুষ দাবি করেছিলেন পাবনার ভ্যাট সুপার মো. শাহাজুল। ঘুষ চাওয়া হয়েছিল পাবনার কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট বিভাগের ডেপুটি কমিশনার এবং বিভাগীয় কর্মকর্তা মো. জাহিদুল ইসলামের কথা বলে। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের ওই দুই কর্মকর্তার সঙ্গে মো. শাহাজুলের এই কথোপকথনের সময় খোদ জাহিদুল ইসলামও উপস্থিত ছিলেন। তাঁদের মধ্যে কী কথা হয়েছিল সেদিন? অডিও রেকর্ডে পাওয়া সেই আলাপচারিতা :

জাহিদুল ইসলাম (ডেপুটি কমিশনার) : কনক সাহেব কি লাঞ্চ করেন নাই?

Advertisement

হিমানী শাহরিয়ার কনক (এজিএম, ইউনিভার্সাল গ্রুপ) : না স্যার অসুবিধা নাই, লাঞ্চ পরে করব। ওই দিনের মিটিংয়ের পর আমরা চিন্তায় আছি।

জাহিদুল : কমিশনার স্যার (ভ্যাট, রাজশাহী) আপনাদের ব্যাপারে খুবই সন্তুষ্ট। আমি অনেকটা কৌশলে কমিশনার স্যারকে ম্যানেজ করেছি। আপনারা প্রবৃদ্ধি ২০ পার্সেন্ট বৃদ্ধি করে দেন।

মো. শাহজাহান (সিইও, ইউনিভার্সাল গ্রুপ) : স্যার, আমি ম্যাডামের সঙ্গে কথা বলেছি। ম্যাডাম আপনাকে সালাম দিয়েছেন এবং বলেছেন আপনি ওনার ভাই। এই প্রতিষ্ঠান আপনাদেরও প্রতিষ্ঠান। আপনাদের সহযোগিতায় আমি গত বছর শ্রেষ্ঠ করদাতা হয়েছি। অতএব ম্যাডাম বলেছেন, আপনার বোনের প্রতিষ্ঠান মনে করে সেভাবে ইনসাফ করে যে সিদ্ধান্ত দেবেন, আমরা সেটাই মেনে নেব।

কনক : স্যার, পাবনার বিষয়টি আপনি সমাধান করে দেন, আপনার নিজের মনে করে।

জাহিদুল : আমি যেটাই করি তার ওপর কমিশনার স্যারের একটা এখতিয়ার থাকে প্রবৃদ্ধি বাড়ানোর। আমি ১০ পার্সেন্ট করলে কমিশনার স্যার সেটা ১৫ পার্সেন্ট করে দিতে পারেন।

শাহজাহান : স্যার, প্রবৃদ্ধির বিষয়টি দয়া করে বিবেচনা করবেন। কারণ আপনি যখন যেটা বাড়াবেন, সেটাই সারা বছর আমাদের দিয়ে যেতে হবে, যেটা আমাদের জন্য কষ্টদায়ক হবে।

জাহিদুল : করোনার কারণে ব্যবসার যে অবস্থা, ব্যবসা হয় কি না হয়। পরবর্তীতে ব্যবসার পরিস্থিতি বুঝে আগামী বছর জুলাই মাসে বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করা হবে।

মো. শাহাজুল (পাবনার ভ্যাট সুপার) : প্রবৃদ্ধি বৃদ্ধি ১০ পার্সেন্ট হবে। আপনারা (ইউনিভার্সাল গ্রুপ) যেটা আমাদের দেবেন, সেটা কি পাবনা অফিস নাকি রাজশাহী অফিসসহ?

শাহজাহান : না ভাই, পুরোটাই পাবনা অফিস ম্যানেজ করবেন।

শাহাজুল : ডিসি স্যার (ডেপুটি কমিশনার জাহিদুল), আপনি এই প্রতিষ্ঠানের পাবনা অফিস প্রধান। আপনিই অল ইন অল।

জাহিদুল : না, আমার ওপর হেডকোয়ার্টার ও কাস্টমস প্রিভেন্টিভ আছে। আমি তো তাদের বাইরে না। আমি যেটাই করি, কমিশনার স্যারকে নিয়ে করতে হবে।

শাহাজুল : স্যার বেয়াদবি নেবেন না। আপনি এখানকার লোকাল প্রতিনিধি। আপনার ওপর কমিশনার, মেম্বার যে-ই থাকুক না কেন, এমনকি প্রাইম মিনিস্টারও যদি ইউনিভার্সাল গ্রুপে ঢুকতে চান, আপনার অনুমতি ছাড়া পারবেন না।

জাহিদুল : মনে করেন হেডকোয়ার্টার থেকে কাস্টমস প্রিভেন্টিভ আসছে, যা আমি এবং আপনি কেউই (পাবনা অফিস) জানি না। আমি ওনাদের সাহায্যে যে বিষয়টি সমাধান করতে চাচ্ছি, তা কমিশনার ও হেডকোয়ার্টার সবাইকে নিয়ে।

শাহাজুল : বিষয়টি আজকে যেহেতু রেভিনিউ নিয়ে; মার্চ মাসের রিটার্ন ইতিমধ্যে দিয়ে দেওয়া হয়েছে। এপ্রিল, মে, জুন—তিন মাসের ওনাদের কাছে ছয় কোটি টাকা দাবি করব, যা হবে ১৫ পার্সেন্ট করে প্রবৃদ্ধি। পরবর্তী বছরে সেটা হবে ৩০ পার্সেন্ট প্রবৃদ্ধি; যা ইউনিভার্সাল গ্রুপের দ্বারা কোনোভাবেই সম্ভব না। এটাকে তিন ভাগ করেন, তাহলে হয় দুই কোটি টাকা। এর মধ্যে আপনি কত নেবেন? হেডকোয়ার্টারকে কত দেবেন? কমিশনার অফিসকেই বা কত দেবেন। স্যার, আমি যতটুকু জানি, ইউনিভার্সাল গ্রুপ কোনোক্রমেই এই রেভিনিউ দিতে পারবে না। সুতরাং আপনি একটা সিদ্ধান্ত দেন।

জাহিদুল : আপনারা (ইউনিভার্সাল গ্রুপের কর্মকর্তারা) একটু পাশের রুমে গিয়ে বসেন। আমরা ১০ মিনিট একান্তে মিটিং করি।

(মিটিংয়ের পর)

শাহাজুল : আপানারা এখন রত্নদ্বীপে (ইউনিভার্সাল গ্রুপের রিসোর্ট) যে ভ্যাট দেন, তা থেকে ১০-১৫ হাজার টাকা বাড়তি দেবেন। বাকি অন্যান্য কম্পানির ভ্যাট যথাযথ নিয়মে হবে। বাকি কথা ডিসি স্যার বলবেন।

জাহিদুল : সুপার সাহেব (ভ্যাট সুপার মো. শাহাজুল) যেভাবে বলবেন সেভাবে ভ্যাট দিয়ে যাবেন। আমরা এখানে একটি আলোচনা করেছি, যা দেড় কোটি টাকা।

শাহাজুল : কী শাহজাহান ভাই, বুঝতে পারছেন? এখনো আপনারা বুঝতে পারেন নাই। ওই দিন আপানারা যাওয়ার পর স্যারকে আমি ম্যানেজ করেছি। আজকে বিষয়টি আরো পরিষ্কার করলাম। এ জন্য স্যার দেড় কোটি টাকায় রাজি হয়েছেন।

জাহিদুল : আমি আপনাদের (ইউনিভার্সাল গ্রুপ) সার্বিকভাবে সব কিছুতেই সেভ করে দেব। এখানে আমি ও কমিশনার স্যার নতুন। আমাদের উভয়ের সাথে সুন্দর সম্পর্ক বজায় রেখে আপনারা সুন্দরভাবে ব্যবসা পরিচালনা করে যাবেন। আপনাদের কোনো সমস্যা হবে না।

শাহাজুল : এই ভাই, আপনারা (ইউনিভার্সাল গ্রুপ) ১.৩০ কোটি টাকায় ফাইনাল করে ফেলান, আপনাদের কষ্ট হলেও।

জাহিদুল : আমি আগামী সপ্তাহে কমিশনার ভ্যাট রাজশাহীর সঙ্গে দেখা করে আপনাদের বিষয়ে কথা বলব। এই কমিশনার থাকাকালে আপনাদের কোনো সমস্যা হবে না।

শাহজাহান : স্যার আপনি পারবেন, আপনি আছেন না!

শাহাজুল : আর কোনো কথা আছে? আপনাদের রিটার্ন কী অবস্থা?

শাহজাহান : আজ আমরা তিনটি রিটার্ন দিয়ে যাচ্ছি।

কনক : ১৫ তারিখের মধ্যে সব দিয়ে দেব, কোনো রিটার্ন বাকি থাকবে না।

শাহাজুল : তাহলে সব ওকে।

শাহজাহান : ম্যাডামকে বলার জন্য একটি ধারণা দিন। ধারণা পাইলে ভাইদের সিদ্ধান্ত জানাব।

জাহিদুল : সিদ্ধান্ত উনি (ভ্যাট সুপার মো. শাহাজুল) আপনাদের জানাবেন, কাল আপনারা নিয়ে আসবেন।

শাহাজুল : সিদ্ধান্ত এক কোটি টাকা। কাল না, কাল বন্ধ। ১৫ তারিখ (১৫ এপ্রিল, ২০২০) নিয়ে আসবেন। আপনিও বলবেন না, আমিও বলব না।

জাহিদুল : ১৫ তারিখ বুধবার দিয়ে দেবেন।

শাহজাহান : তখন বলেছেন যে বিষয়টি পুনর্বিবেচনার জন্য অনুরোধ করছি।

জাহিদুল : আপনারা যেহেতু দ্বিতীয়বার আমার চেম্বারে এসেছেন, নিশ্চয়ই আপনারা সিদ্ধান্ত নিয়ে এসেছেন।

শাহজাহান : তখন বলেছেন স্যার। আপনার সম্মানে আমরা এসেছি। ম্যাডাম আমাদের আপনার নিকট পাঠিয়েছেন।

জাহিদুল : পুনরায় আসার প্রয়োজন নাই, এক কোটি টাকাই ফাইনাল।

শাহাজুল : শাহজাহান ভাই, যা হচ্ছে এটাই ফাইনাল। ডিসি স্যার বলেছেন এক কোটি টাকা দিতে হবে হেডকোয়ার্টারসহ।

শাহজাহান : কোনোক্রমেই এক কোটি টাকা দেওয়া সম্ভব নয়। এটা সম্পূর্ণরূপে আমাদের ওপর জুলুম করা হবে।

Advertisement