বর্তমান সময়ের নায়িকাদের মধ্যে সবচেয়ে আলোচিত নায়িকা হল দীঘি। কেননা এতদিন দর্শকেরা তাকে শিশু শিল্পী হিসেবেই দেখে এসেছেন। তাই তার নায়িকা হওয়া নিয়ে দর্শকদের মধ্যে একটি আগ্রহ কাজ করছে। এছাড়া দীঘি টিকটক, লাইকি এই সকল সামাজিক মাধ্যমেও খুব জনপ্রিয়। কিন্তু সম্প্রতি দীঘি ফেসে যাচ্ছেন ১ কোটি টাকার মামলায়।

সম্প্রতি দীঘি অভিনীত সিনেমা শুক্রবার (১২ মার্চ) মুক্তি পেতে যাচ্ছে। আর এটি হবে দীঘির নায়িকা হিসেবে অভিনীত প্রথম সিনেমা। জাজ মাল্টিমিডিয়ার ব্যানারে এই সিনেমাটির পরিচালক হলেন দেলোয়ার জাহান ঝন্টু। আর এই সিনেমাতে নায়ক হিসেবে আছেন আসিফ ইমরোজ। গত ৪ মার্চ ইউটিউবে সিনেমাটির ট্রেইলার প্রকাশিত হওয়ার পর থেকে নেগেটিভ প্রতিক্রিয়া আসতে শুরু করে। সবাই এই সিনেমাটির ট্রেইলার নিয়ে রীতিমত নিন্দা ও ট্রল করছে।

ইতিমধ্যে ইউটিউবে এই ট্রেইলারে ডিসলাইকের বন্যা বয়ে যাচ্ছেন। আর দীঘি সহ সিনেমা সংশ্লিষ্ট সবাই ট্রলের শিকার হচ্ছেন। এদিকে সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে দীঘি বলেন, এই ধরনের ছবি আর বাংলাদেশে চলবে না। আর এতেই চটেছেন পরিচালক। পরিচালক জানান, দীঘির একটি ছবি মুক্তি পাওয়ার আগেই এই ধরনের নেতিবাচক কথা বলা মোটেও ঠিক হয়নি। এর জন্য দীঘিকে শাস্তি পেতে ।

পরিচালক দেলোয়ার জাহান ঝন্টু জানান, তিনি দীঘি, দীঘির বাবা ও দীঘির মামার বিরুদ্ধে ১ কোটি টাকার মানহানির মামলা করেছেন। পরিচালকের ভাষ্যমতে, ” আমার যে প্রোফাইল ও সফলতা তাতে আমার মান সম্মানের মূল্য ১০ কোটি টাকারও বেশি। সেখান থেকে আমি তাদের নামে ১ কোটি টাকার মামলা করেছি।”

এই পরিচালক আরো বলেন, একটি নতুন নায়িকা কিভাবে মুক্তির আগেই বলে যে, এই ছবি চলবে না। তার এত বড় সাহস কি করে হয়। সে কেন মানি লোকের মান নষ্ট করবে। তাকে এই অধিকার কে দিয়েছে। এর জন্য তাকে অবশ্যই মূল্য দিতে হবে। না হলে ভবিষ্যতে এই ধারা অব্যাহত থাকবে। যা বাংলা সিনেমার জন্য মোটেও সুখকর হবে না।

এদিকে দীঘি তার বক্তব্যের জন্য ক্ষমা চেয়েছেন। আর বলেছেন তার কথাতে কেউ যদি কষ্ট পেয়ে থাকে, তাহলে তার জন্য সে লজ্জিত ও ক্ষমাপ্রার্থী।