সাধারণত গাছ নিকটস্থ কোন নার্সারী থেকে কেনা যেতে পারে। গাছ কেনার সময় খেয়াল রাখতে হবে, গাছের চা্রাটি যেন সোজা হয়, চারাটি কোন রোগে আক্রান্ত কিনা তা দেখে নিতে হবে। সব সময় সুস্থ চারা কিনতে হবে। চারাটি কোন রোগে আক্রান্ত হলে এর পাতাগুলি কোকড়ানো হবে, পাতা পোড়া থাকবে ইত্যাদি। আর চারাটি নার্সা্রি থেকে অবশ্যপই একটি পলিথিনের প্যাকে এর শিকড়সহ দেওয়া হবে। খেয়াল রাখতে হবে চারাটির কোন শিকড় যেন পলিথিন ভেদ করে বাইরে বের হয়ে গেছে এমনটি না হয়।
এমনটি হলে ঐ চারা নেওয়া যাবেনা। আর চারাটি অবশ্যই কলমের চারা হতে হবে। চারাটি যেন কোন প্রকার আঘাতপ্রাপ্ত না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

টবের মাটি তৈরিঃ

ছাদে গাছ লাগানোর জন্য যেটা সবথেকে জরুরি সেটা হল, টবের মাটি তৈরি। এটার উপর গাছের ফলন ও টেকশই নির্ভর করে। একটা কথা মাথায় রাখতে হবে, যেহেতু এটি টবে করতে হবে, তাই এর সর্বোচ্চ যত্ন করতে হবে,
কারণ যত্ন না করলে আর ঠিকমত মাটি প্রস্তুত না করলে গাছ হবে না। কারণ টবের ঐ মাটি থেকেই গাছ পুষ্টি সংগ্রহ করবে, তাই মাটিটি পারফেক্ট হতে হবে। যেকোন গাছের জন্য সাধারণত ২ ভাগ মাটি, ১ ভাগ ভার্মিকম্পোস্ট বা গোবর সার, ১/২ ভাগ বালি, ১/২ ভাগ ( খৈল এর গুড়া, গাড়্গুড়া, শিংকুচি গুড়া এর মিশ্রণ) দিয়ে মিশিয়ে মাটি তৈরি করতে হবে।

টবে গাছ প্রতিস্থাপনঃ

টবে গাছ লাগানোর সময় টবের নিচের যে ফুটো থাকবে তা খোলাম কুচি দিয়ে বন্ধ করে নিতে হবে। এরপর টবের মধ্যে কিছুটা পরিমাণ ইটের ছোট খোয়া দিয়ে ঐ খোলামকুচিকে ঢেকে দিতে হবে। এরপর এরমধ্যে সামান্য বালি দিয়ে
এই খোয়াগুলিকে ঢেকে দিতে হবে। এরপর এর মধ্যে পুরো টব জুড়ে মাটি ভর্তি করতে হবে। টবের নিচে খোলাম কুচি, বালি ও খোয়া দেওয়ার কারণ হল, যাতে খুব ভালভাবে টবের পানি নিষ্কাশন হয়। কারণ টবে পানি
জমে থাকলে গাছের শিকড় পচে যাবার সম্ভাবনা থাকে। এরপর গাছটিকে মাটিতে প্রতিস্থাপন করতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে, যেন ঠিক মধ্যখানে প্রতিস্থাপন করা হয়। গাছ প্রতিস্থাপনের পর চারিদিকের মাটি ভাল করে চেপে দিতে হবে। যাতে মাটিতে কোন গ্যাপ না থাকে। কারণ এই গ্যাপ থাকলে গাছের ক্ষতি হতে পারে। এরপর গাছের টব ভরে পানি দিতে হবে। ছোট চারা হলে একটি বাঁশের লাঠি দিতে গাছটিকে দড়ি দিয়ে বেধে দিতে হবে। যাতে করে বাতাসে গাছটি পড়ে না যায়। এরপর গাছটিকে ২-৩ দিন ছায়াযুক্ত স্থানে রাখতে হবে।