একটি ওয়েবসাইটের জন্য গুগল সাইটম্যাপ ও গুগল অ্যানালাইটিক খুবই গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। বিশেষ করে এই দুইটি একটি ওয়েবসাইটের seo এর জন্য খুবই প্রয়োজনীয়।

গুগল সাইটম্যাপ সেট করা

Google search console tools সেট আপ করা একটি ওয়েবসাইটের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এর মাধ্যমে একটি ওয়েবসাইট কে গুগলে সাইটম্যাপ করে index করা যায়। যেটা একটি ওয়েবসাইটের জন্য খুবই প্রয়োজনীয়। কারণ গুগল সাইটম্যাপ বা গুগলে ওয়েবসাইটের প্রতিটা কনটেন্ট যদি index না করা হয়  তাহলে সেক্ষেত্রে একটি ওয়েবসাইট সার্চ ইঞ্জিনে দেখাবে না বা র‍্যাংক করবে না। যার ফলে এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ওয়েবসাইটটি র‍্যাংক করার জন্য বা ওয়েবসাইটটি পাঠকের কাছে পৌঁছানোর জন্য google search console tools এ যদি আপনার  ওয়েবসাইটটি না সেট করা হয় সেক্ষেত্রে আপনি কখনোই গুগল এডসেন্স অ্যাপ্রুভাল আপনার ওয়েবসাইটে পাবেন না। তাই google search console খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিভাবে google serch console এর মাধ্যমে একটি ওয়েবসাইটকে ইনডেক্স করা হয় তা দেখে নিন-

Google search console tools এর মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটকে সাইটম্যাপ করার জন্য সর্বপ্রথম আপনার একটি জিমেইল লাগবে। এরপর সেই জিমেইল দিয়ে google search console tools এ sign in করতে হবে। এর জন্য start now বাটনে ক্লিক করতে হবে। এরপর আপনি আপনার ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথবা ওয়েব সাইটের লিংক এই দুটির মধ্যে যেকোনো একটি দিয়ে আপনার ওয়েবসাইট কে ভেরিফাই করে নিতে হবে।

আপনি যদি আপনার ডোমেইন দিয়ে ভেরিফাই করতে চান। তাহলে আপনি আপনার শুধুমাত্র ডোমেইন নামটি লিখতে হবে। এরপর আপনি আপনার ডোমেইন প্রোভাইডারে যেয়ে, manage dns থেকে google search console tools থেকে দেওয়া txt ফাইল সেট করে সেখানে দিতে হবে। এরপর ভেরিফাই বাটনে ক্লিক করলে আপনার ডোমেইনটি ভেরিফাই হয়ে যাবে। 

এছাড়া আপনি আপনার ওয়েবসাইটের লিংক দিয়েও ভেরিফাই করতে পারেন। সেক্ষেত্রে আপনি আপনার ওয়েবসাইটের url দিবেন দেয়ার পর কন্টিনিউ বাটনে ক্লিক করবেন। এরপর এখানে তিনভাবে আপনার ওয়েবসাইটটি ভেরিফাই করা যাবে। তবে এর মধ্যে meta ট্যাগের মাধ্যমে ওয়েবসাইট ভেরিফিকেশন করাটা সবথেকে সহজ।

১. ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইটে গুগল সাইটম্যাপ সেট করা

আপনি যদি ওয়ার্ডপ্রেসের মাধ্যমে এটা ভেরিফাই করতে চান। তবে সেক্ষেত্রে আপনি Insert headers and footers নামের একটি প্লাগিন মাধ্যমে আপনার এই meta ট্যাগটি হেডারে দিয়ে ভেরিফাই করতে পারবেন। আপনি যদি কোন প্রসিদ্ধ ভালো থিম ব্যবহার  করেন। সেক্ষেত্রে সেই থিমের হেডার ফাংশানে লিংকটি দিয়ে ওয়েবসাইট ভেরিফাই করে নিতে পারবেন। অথবা আপনি যদি কোন এসইও প্লাগিন ব্যবহার করেন। যেমন all in one seo, yoast seo, rank math.  এগুলোর মাধ্যমে খুব সহজেই ভেরিফাই করে নিতে পারবেন।

ভেরিফাই হয়ে গেলে google search consoleএর ড্যাশবোর্ড থেকে sitemaps বাটনে ক্লিক করতে হবে।  ক্লিক করে আপনার ওয়েবসাইটের সাইট ম্যাপের url টি এখানে বসাতে হবে। ওয়ার্ডপ্রেসে ওয়েবসাইটে সাইট ম্যাপের url বানানোর জন্য google xml sitemap, all in one seo বা yoast seo প্লাগিন ব্যবহার করতে হবে। এই প্লাগিনগুলি দিয়ে খুব সহজে sitemap url তৈরি করা যায়। এছাড়া xml-site.com ওয়েবসাইটের মাধ্যমেও সাইটম্যাপ তৈরি করা যায়। এরপর submit বাটনে ক্লিক করলে ওয়েবসাইটের সকল posts, page গুগলে ইনডেক্স হয়ে যাবে।

২. blogger.com ওয়েবসাইটে গুগল সাইটম্যাপ সেট করা

আপনার ওয়েবসাইটে যদি blogger.com দিয়ে তৈরি হয় সেক্ষেত্রে আপনার ওয়েবসাইটের লিংক ভেরিফিকেশনের জন্য customize থেকে edit html বাটনে ক্লিক করতে হবে এবং সেখান থেকে হেডারের নিচে meta tagটি বসিয়ে দিয়ে save changes করতে হবে। তাহলে আপনার ওয়েবসাইটের ভেরিফাইড হবে। ব্লগার ওয়েবসাইটের সাইটম্যাপ তৈরি করার জন্য xml-site.com ওয়েবসাইটের মাধ্যমে সাইটম্যাপ তৈরি করে নিতে হবে। এরপর ব্লগারের settings থেকে Crawlers and indexing এ যেতে হবে। এখান থেকে Enable custom robots.txt এনাবেল করে দিতে হবে। এরপর google search console থেকে সাইটম্যাপ সাবমিট করতে হবে।

গুগল অ্যানালাইটিক সেট করা

গুগল অ্যানালাইটিকের এর মাধ্যমে একটি ওয়েবসাইটের সকল তথ্য, পেজ ভিত্তিক, ক্যাটাগরি ও পোষ্ট ভিত্তিক পাওয়া যায়। একটি ওয়েবসাইটে কত ভিজিটর হলো, কত ইউজার হল,  ওয়েবসাইটের কি পরিমাণ স্পিড, কোন কোন দেশ থেকে ভিজিটর হয়েছে,  কি কি কিওয়ার্ডের উপর ভিজিটর হয়েছে, কোন কোন উৎস থেকে ভিজিটর হয়েছে,  ভিজিটরের পরিমাপ কী রকম ছিল, ভিজিটর ছেলে বেশি ছিল না মেয়ে বেশি ছি এই ধরনের সকল তথ্য google analytics এর মাধ্যমে পাওয়া যায়। গুগল অ্যানালাইটিক একটি ওয়েবসাইটে যদি না সেট করা থাকে তাহলে সেই ওয়েবসাইটে কখনোই গুগল এডসেন্স অ্যাপ্রুভ হবে না। শুধু তাই নয় আপনি আপনার ওয়েবসাইটের ভিজিটরের প্রকৃত গতিবিধিও গুগল এনালাইটিক ছাড়া জানতে পারবেন না। যার ফলে গুগল অ্যানালাইটিকের প্রয়োজনীয়তা অনেক বেশি। কিভাবে ওয়ার্ডপ্রেস এবং ব্লগার সাইটে গুগল অ্যানালাইটিক লাগাতে হয় সেটা আমরা জানব।

গুগল অ্যানালাইটিক লাগানোর জন্য সর্বপ্রথম analytics.google.com এ ঢুকতে হবে। এরপর measuring বাটনে ক্লিক করে জিমেইল দিয়ে sign in করতে হবে। এরপর account setup করার জন্য account nameদিয়ে next বাটনে ক্লিক করতে হবে।

এরপর property name, timezone, currency দিয়ে next বাটনে ক্লিক করতে হবে। এরপর bussiness information এ দিয়ে create বাটনে ক্লিক করতে হবে। এরপর web property সিলেক্ট করতে হবে। এখান থেকে আপনি আপনার ওয়েবসাইটের url টা লিখবেন। ওয়েবসাইটের নাম লিখে ক্রিয়েট এ ক্লিক করতে হবে। এখান থেকে আপনি একটি গুগল অ্যানালাইটিক tracking code পাবেন। এই code টি একটি আপনার ওয়েবসাইটে হেডারের সেট করতে হবে।

১. ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইটে google analytic tracking code লাগানোর নিয়ম

গুগল অ্যানালাইটিক tracking কোড লাগানোর জন্য ওয়ার্ডপ্রেসের বিভিন্ন প্রিমিয়াম থিমে অপশন রয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন seo প্লাগিন এর মাধ্যমে গুগল অ্যানালাইটিক tracking কোড লাগানোর অপশন রয়েছে। এভাবে গুগল অ্যানালাইটিক tracking কোডটি ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইটে সেট করলে ওয়েবসাইটের ভিজিটরের সকল তথ্য গুগল অ্যানালাইটিক ড্যাশবোর্ড থেকে দেখা যাবে।

২. Blogger.com ওয়েবসাইটে google analytic tracking code লাগানোর নিয়ম

Blogger.com এ google অ্যানালাইটিকের tracking কোডটি লাগানোর জন্য Theme বাটন থেকে customization এর edit html এ ক্লিক করতে হবে। সেখানে হেড ট্যাগের নিচে এই কোডটি সেট করে দিতে হবে। তাহলেই গুগল অ্যানালাইটিক থেকে ওয়েবসাইটের ভিজিটরের সকল তথ্য সঙ্গে সঙ্গে পাওয়া যাবে। গুগল অ্যানালাইটিক এর মাধ্যমে একটি ওয়েবসাইটের সকল ইউজারের রিয়েল টাইম তথ্য পাওয়া যায়। এভাবে খুব সহজে একটি ওয়েবসাইটের জন্য গুগল অ্যানালাইটিক লাগানো যায়।