বর্তমান এই পৃথীবিতে একটি ওয়েবসাইটের প্রয়োজনীয়তা অনেক। কারণ আমরা যারা ছোট বা বড় যেকোন ব্যবসাই করিনা কেন, এর জন্য একটি ওয়েবসাইটের প্রয়োজন হয়। আর এই ওয়েবসাইট এখন নিজে থেকেই বানানো যায়। বিভিন্নভাবে ওয়েবসাইট বানানো গেলেও সবথেকে সহজে ওয়ার্ডপ্রেসের মাধ্যমে ওয়েবসাইট বানানো সম্ভব হয়ে থাকে। সাধারণত ওয়ার্ডপ্রেসের মাধ্যমে যেকোনো ওয়েবসাইট খুব সহজেই বানানো যায়। এছাড়া গুগলের ব্লগার ও বিভিন্ন ওয়েবসাইট বিল্ডারের মাধ্যমেও ওয়েবসাইট বানানো যায়।

একটি ওয়েবসাইট বানাতে কি কি প্রয়োজন হয়-

একটি ওয়েবসাইট বানাতে প্রয়োজন হয়ঃ

১. ডোমেইন

২. হোস্টিং

৩. ওয়ার্ডপ্রেস/ব্লগার/ওয়েবসাইট বিল্ডার/অন্যান্য মাধ্যম

ডোমেইন কি

ডোমেইন হলো একটি ওয়েবসাইটের নাম। অর্থাৎ আপনি যেই নামে একটি ওয়েবসাইট খুলতে চান তার একটি নাম লাগে। সেই নামকেই ডোমেইন বলে।

বিভিন্ন নামের ডোমেইন রয়েছে। যেমনঃ .com, .net, .org ইত্যাদি। আপনি যেই নামের ওয়েবসাইট খুলতে চান সেই নামের সাথে .com. org. net এগুলো লাগিয়ে দিয়ে আপনার ডোমেইনটি কিনতে হবে। আর এই ডোমেইনটি কিনতে পাওয়া যায় Godaddy.com অথবা Namecheap.com সহ অনেক এই রকম ওয়েবসাইটে। 

হোস্টিং কি

আপনার ওয়েবসাইটের সকল ধরনের কনটেন্ট যেমন- ছবি বিভিন্ন ফাইল ব্লগ, ডাটাবেজ ইত্যাদি সকল কিছুই একটি জায়গায় সংরক্ষিত রাখতে হয় সেই জায়গাটিকে হোস্টিং বলে। আর আপনার ডোমেইনকে এই হোস্টিং এর সাথে সংযুক্ত করতে হয়। বিভিন্ন কোম্পানি এই হোস্টিং বিক্রি করে থাকে যেমন godaddy.com,  bluhost.com, vultr.com,  amazon.com, google.com ইত্যাদি। এই ধরনের কোম্পানি হোস্টিং বিক্রি করে থাকে আর আপনারা খুব সহজে আপনাদের ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে এই ওয়েবসাইটগুলো থেকে হোস্টিং কিনে নিতে পারবেন। এরপর এই হোস্টিং এর সাথে আপনার ডোমেইনটি সংযুক্ত করে নিতে পারবেন।

কি কি উপায়ে ওয়েবসাইট বানানো যায়-

ওয়ার্ডপ্রেসের মাধ্যমে

ওয়ার্ডপ্রেস হলো একটি সিএমএস (CMS)। সিএমএস মানে হল কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম। পৃথিবীতে এরকম অনেকগুলো কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম রয়েছে। যাদের ভিতরে ওয়ার্ডপ্রেস সব থেকে জনপ্রিয় ও সহজলভ্য। ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে যেকোনো ওয়েবসাইট খুবই সহজে বানানো যায়।ওয়ার্ডপ্রেস এ ওয়েবসাইট বানানোর জন্য শুধুমাত্র থিম ও কয়েকটি প্লাগিন্স এর প্রয়োজন হয়। থিম দিয়ে পুরো একটি ওয়েবসাইটের লেআউট তৈরি করা হয়। আর প্লাগিন্স দিয়ে ওয়েবসাইটে জন্য প্রয়োজনীয় ফাংশন তৈরি করা হয়।  অর্থাৎ থিম হলো একটি কাঠামো। আর আর প্লাগিন হলো ওয়েবসাইটের উপাদান।

ওয়ার্ডপ্রেসের মাধ্যমে ব্লগ, ই-কমার্স, এডুকেশন, এন্টারটেইনমেন্ট, হলিডে, নিউজ, ফটোগ্রাফি, পোর্টফলিও, ফুড এন্ড ড্রিংক এরকম নানা ধরনের ওয়েবসাইট তৈরি করা যায়। ওয়ার্ডপ্রেসের ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য আপনাকে আপনার পছন্দমত একটি হোস্টিং প্রথমে পছন্দ করে নিতে হবে। এরপর সেই হোস্টিংয়ে আপনার ডোমেইনটি সংযোগ করে এতে ওয়ার্ডপ্রেস টি ইন্সটল করতে হবে। ইন্সটল করার পর দেখা যাবে যে ওয়ার্ডপ্রেসের একটি ড্যাশবোর্ড তৈরি হবে। সেই ড্যাশবোর্ড এর জন্য যে ইউজার নেম ও পাসওয়ার্ড দিবে সেটা দিয়ে ঢুকতে হবে।

ওয়ার্ডপ্রেস ড্যাশবোর্ড

ঢোকার পর প্রথমে আপনাদেরকে অ্যাপিয়ারেন্স এ ক্লিক করতে হবে। অ্যাপিয়ারেন্স এ ক্লিক করার পর এখান থেকে আপনারা যে কোন থিম কানেক্ট করে নিতে পারবেন। আপনারা চাইলে এড নিউ বাটন থেকে যে কোন থিম ইন্সটল করে নিতে পারবেন। একটি থিমের বিভিন্ন ফাংশান বা বিভিন্ন অপশন থাকে সেই অনুযায়ী ওয়েবসাইট টিকে সহজে বানানো যায়। এরপর আপনাদেরকে প্লাগিন সেকশনে যেতে হবে। প্লাগিন সেকশনে যেয়ে, আপনারা এখান থেকে আপনাদের প্রয়োজনীয় যে প্লাগিনগুলো ইনস্টল করতে হবে।  আপনাদের ওয়েবসাইট কে সুন্দর করে বানাতে পারবেন প্লাগিন্সের মাধ্যমে। যেমন আপনারা সহজভাবে একটি ওয়েবসাইটের জন্য ওয়েবসাইটের ব্লগের জন্য

শেয়ার বাটন লাগাতে পারবেন লাগাতে পারবেন প্লাগিনের মাধ্যমে। এছাড়া আপনাদের ওয়েবসাইটের স্পিড বৃদ্ধি করার জন্য আপনারা প্রয়োজনীয় প্লাগিন্স লাগাতে হবে। এই ধরনের অনেক প্লাগিন আপনারা আপনাদের ওয়েবসাইটে খুব সহজে লাগিয়ে আপনাদের ওয়েবসাইটটিকে বানাতে পারবেন। এভাবে খুব সহজে আপনারা ওয়ার্ডপ্রেসের মাধ্যমে খুব সহজে আপনাদের জন্য প্রয়োজনীয় একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে নিতে পারবেন।

ব্লগারের (Blogger.com) মাধ্যমে

ব্লগার (blogger.com) হলো গুগলের একটি ফ্রি সার্ভিস। ব্লগার দিয়ে আপনারা যেকোনো ধরনের ব্লগিং ওয়েবসাইট বানাতে পারবেন। যেটা সম্পূর্ণ ফ্রিতে।  এখানে আপনাদের জন্য আলাদা করে কোন প্রকার হোস্টিং এর দরকার হবে না। গুগল আপনাদেরকে হোস্টিং প্রদান করবে। ব্লগারে ওয়েবসাইট বানানো আরো সহজ। ব্লগার ওয়েবসাইট বানানোর জন্য আপনাদের দরকার হবে একটি জিমেইল(Gmail.com) এড্রেস। সেই জিমেইল এড্রেস এর মাধ্যমে আপনারা খুব সহজেই সাইন ইন করতে পারবেন। এর জন্য আপনাদেরকে প্রথম একটি জিমেইল এড্রেস খুলতে হবে।

এরপর আপনারা গুগলের সার্চবারে blogger.com কম লিখে সার্চ দিবেন। এরপর একটি ওয়েবসাইট আসবে, এখান থেকে আপনারা সাইন ইন বাটনে ক্লিক করে আপনারা সেই ব্লগার সাইটে প্রবেশ করবেন। এরপর আপনাদেরকে একটি টাইটেল দিতে হবে। টাইটেল দেওয়ার পর নেক্সট বাটনে ক্লিক করতে হবে। এরপর আপনি আপনার যে ধরনের ব্লগ ওয়েবসাইট বানাবেন সেই ধরনের একটি ওয়েব এড্রেস দিয়ে দিবেন। যে ওয়েব এড্রেসের শেষে এক্সটেনশন হিসেবে ডটকম অবশ্যই থাকবে এরপর নেক্সট বাটনে ক্লিক করতে হবে। নেক্সট বাটনে ক্লিক করে একটি ডিসপ্লে নাম দিতে হবে। ডিসপ্লে নাম দেয়া হয়ে গেলে ফিনিশ বাটনে ক্লিক করলেই আপনারা ব্লগারের ড্যাশবোর্ডে চলে আসবেন।

ব্লগার ড্যাশবোর্ড

ব্লগারের ড্যাশবোর্ডে ওয়ার্ডপ্রেসের মতোই থিম অপশন থাকবে। এখান থেকে আপনারা যেকোনো একটি থিম সিলেক্ট করে নিলেই আপনাদের ওয়েবসাইটের লেআউট হয়ে যাবে। এরপর আপনারা পোস্ট অপশনে যেয়ে আপনাদের প্রয়োজনীয় ব্লগের পোস্ট এড করতে পারবেন। পেজ অপশনে যেয়ে আপনারা আপনাদের প্রয়োজনীয় ব্লগের পেজ অ্যাড করতে পারবেন।

এছাড়া লেআউট অপশনে যেয়ে আপনারা ব্লগের হেডারের বা ফুটারের বিভিন্ন ফাংশন অ্যাড করতে পারবেন। হেডারের মেনু হেডারের লোগো এসমস্ত জিনিস আপনারা লেআউট অপশনে যেয়ে সেট করতে পারবেন।  ব্লগারের এই ওয়েবসাইটের ডোমেইনটি গুগল আপনাদের কে প্রদান করবে। কিন্তু আপনারা যদি মনে করেন যে আপনারা আপনাদের পছন্দের একটি ডোমেইন ব্লগারে সেট করতে চান। তাহলে সেক্ষেত্রে সেটিং বাটনে ক্লিক করতে হবে। সেটিং বাটনে ক্লিক করে কাস্টম ডোমেইন অপশনে ক্লিক করতে হবে। কাস্টম ডোমেইন থেকে আপনার ডোমেইনটি সেখানে লিখে রি-ডাইরেক্ট করে দিলে, আপনাদের ডোমেইনটি সেখানে অ্যাড হয়ে যাবে। অর্থাৎ আপনার নিজস্ব একটি ডোমেইন লাগিয়ে একটি ওয়েবসাইট ফ্রিতে কোন প্রকার হোস্টিং খরচ ছাড়াই আপনারা তৈরি করতে পারবেন।

Wix ওয়েবসাইট বিল্ডারের মাধ্যমে

Wix এর মাধ্যমে যেকোনো ওয়েবসাইট খুব সহজেই তৈরি করা যায়। উইকস্‌ হলো একটি ওয়েবসাইট বিল্ডার। এই ওয়েবসাইট বিল্ডার দিয়ে যেকোনো ওয়েবসাইট অনায়াসে কোন প্রকার কোডিং জ্ঞান ছাড়া কোন প্রকার ওয়েব ডেভেলপিং জ্ঞান ছাড়া খুব সহজেই তৈরি করা যায়। পৃথিবীতে এরকম অনেক ওয়েবসাইট বিল্ডার আছে তাদের মধ্যে উইকস্‌ ওয়েবসাইট বিল্ডার সবথেকে জনপ্রিয় এবং সব থেকে সহজ। আপনারা যে কেউই খুব সহজে উইকস্‌ দিয়ে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন।

ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য আপনাদেরকে উইকস্‌ ডট কম (wix.com) । এটি লিখে গুগলের সার্চ বাড়ে সার্চ করতে হবে। এরপর উইকস্‌ এ ঢুকতে হবে।  উইকস্‌ এ ঢোকার পর আপনারা এখান থেকে উইকস্‌ খুব সহজেই লগইন করে নিতে পারবেন জিমেইল বা ফেসবুকের মাধ্যমে বা আপনাদের যদি কোন জিমেইল এড্রেস থাকে সেটার মাধ্যমে। আপনারা খুব সহজেই লগইন করে নিতে পারবেন।

Wix ইন্টারফেস

এরপর এখানে আপনারা উইকস্‌ এর ইন্টারফেসে ওয়ার্ডপ্রেস বা ব্লগারের মত ইন্টারফেস দেখতে পাবেন।  এখান থেকে মাই সাইট অপশন থেকে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে এডিট সাইট বাটনে ক্লিক করতে হবে।  ইটসাইড বাটনে যেয়ে আপনারা এখানে আপনাদের ইচ্ছামত পেজ অ্যাড করতে পারবেন। মেনু অ্যাড করতে পারবেন। সাইট ডিজাইন করতে পারবেন এবং যেকোনো ধরনের অ্যাপ এখানে লাগিয়ে যেকোনো ফাংশন ওয়েবসাইটে করতে পারবেন।

এর জন্য কোন থিমের প্রয়োজন হবে না। আপনারা চাইলে ড্রাগ এন্ড ড্রপের মাধ্যমে খুব সহজে আপনাদের ইচ্ছা মত একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন। এই ওয়েবসাইটটি তৈরি করা অনেকটা ছবি আঁকার মত আপনারা যেমন ছবিতে একটি কাগজের উপর সুন্দরভাবে আঁকিয়ে আঁকিয়ে একটি ছবির লেআউট তৈরি করেন। ঠিক তেমনিভাবে উইকস্‌ এ ওয়েবসাইট বিল্ডারের মাধ্যমে আপনারা খুব সহজে ড্রাগ এন্ড ড্রপ করে একটি ওয়েবসাইট বানাতে পারবেন।

এভাবে খুব সহজে একটি ওয়েবসাইট ওয়ার্ডপ্রেস, ব্লগার এবং উইকস্‌ এর মাধ্যমে তৈরি করা যায়। যা একদম সহজ।