একটি ওয়ার্ডপ্রেসের ওয়েবসাইট বানানো অনেক সহজ একটি ব্যাপার। কিন্তু খুব সহজে খুব সুন্দরভাবে একটি ওয়েবসাইট বানানোর পরেও যদি সেই ওয়েবসাইটটির সঠিকভাবে এসইও না করা হয়। তাহলে পুরো পরিশ্রমই বৃথা যাবে। কারণ একটি ওয়েবসাইটের এসইও এর উপর সেই ওয়েবসাইটের থেকে আয় আশা করা যায়। এস ই ও মানে হল সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন। এসইও এর মাধ্যমে একটি ওয়েবসাইটকে পাঠকের কাছে বা কাস্টমারের কাছে পৌঁছানো যায়। আমরা দেখব কিভাবে একটি ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইটের এসইও করতে হয়-

১. ওয়ার্ডপ্রেসের একটি ওয়েবসাইটে এসিও করার জন্য সর্বপ্রথম যে কাজটি করতে হবে সেটি হল google search console tools এ ওয়েবসাইটটি ইনডেক্স করাতে হবে। আপনারা যদি আপনার ওয়েবসাইটকে গুগলে ইনডেক্স না করান সে ক্ষেত্রে ওয়েবসাইটটি কখনোই গুগলের সার্চ বারে দেখাবে না। আর গুগলের সার্চ বারে যদি ওয়েবসাইট না দেখায় তাহলে আপনার কাস্টমার বা আপনার পাঠক আপনার ওয়েবসাইট কে পাবে না। সুতরাং সর্বপ্রথম ওয়েবসাইট টিকে গুগলের সাইট ম্যাপ করতে হবে।

যেভাবে গুগল সাইটম্যাপ করতে হয়

এই google এর সাইট ম্যাপ বিভিন্ন উপায় করা যায়।

১. ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন্স এর মাধ্যমে

২. ম্যানুয়াল ভাবে

গুগল ওয়েবমাস্টার গাইডলাইনে বলা আছে কিভাবে একটি ওয়েবসাইটকে সঠিকভাবে বানাতে হবে। সেই গাইডলাইন অনুযায়ী ওয়েবসাইট সঠিকভাবে বানাতে হবে। যেমন-

আপনার ওয়েবসাইট এর লেয়াউট ঠিক রাখতে হবে।  এবার আপনার ওয়েবসাইটটিকে সাইটম্যাপ করার জন্য সর্বপ্রথমgoogle search console tools ওয়েবসাইটে ঢুকতে হবে। এখানে আপনার জিমেইল এড্রেস দিয়ে লগইন করতে হবে। এরপর অ্যাড সাইট অপশনে আপনার সাইটের ইউআরএলটি দিতে হবে এবং আপনার সাইটকে ভেরিফাই করার জন্য একটি মেটা কোড দেয়া হবে সেই কোডটি আপনি ওয়ার্ডপ্রেসের বিভিন্ন এসইও প্লাগিন দিয়ে ভেরিফাই করে নিতে পারবেন।

এছাড়া বিভিন্ন প্রিমিয়াম থিমে এই কোড লাগানোর অপশন থাকে সেখান থেকে আপনি এই কোডটি লাগিয়ে ভেরিফাই করতে পারবেন। এছাড়া হেডার এন্ড ফুটান নামের একটি প্লাগিন রয়েছে। সেই প্লাগিন এর মাধ্যমেও কোডটি বসিয়ে আপনার ওয়েবসাইটকে ভেরিফাই করতে পারবেন। এই কোডটি ম্যানুয়ালি ওয়েবসাইটের হেডারে বসিয়ে ওয়েবসাইটকে ভেরিফাই করে নিতে পারবেন। ওয়েব সাইটটি ভেরিফাই হওয়ার পর google search console tools এর sitemap অপশনে যেয়ে আপনার ওয়েবসাইটের সাইট ম্যাপটি সাবমিট করে দিতে হবে। সাইটম্যাপ তৈরি করার জন্য google xml sitemap অথবা যে কোন seo প্লাগিন্স এর মাধ্যমে সাইটম্যাপ টি তৈরি করতে পারবেন। এই সাইটম্যাপের লিংক জায়গায় বসিয়ে সাইট ম্যাপটিকে সাবমিট করে নিতে পারবেন।

ওয়ার্ডপ্রেসের seo plugins

একটি ওয়ার্ডপ্রেস এর ওয়েবসাইট কে সঠিকভাবে এসিও করার জন্য দরকার হবে একটি সঠিক seo প্লাগইন। এর ভিতর all in seo pack, yoast seo plugin বা rank math seo plugin যেকোনো একটি সেট করে নিতে হবে বা ইন্সটল করে নিতে হবে। ইন্সটল করার পর এই প্লাগিন্স এর মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটের সাইটম্যাপ টি জেনারেট করতে হবে। এবং সেই সাইটম্যাপ google search console tools এ সেটআপ করতে হবে। এই ধরনের প্লাগিনসে অনেক অপশন থাকে যেগুলো আপনার ওয়েবসাইট এর সঠিকভাবে এসিও করতে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এই প্লাগিনের মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটে পেজ, পোস্ট এবং ক্যাটাগরির সঠিকভাবে seo করতে হবে এবং সঠিক কিওয়ার্ড লাগাতে হবে।

আপনার ওয়েবসাইট এর সঠিকভাবে এসিও করার জন্য আপনার ওয়েবসাইটের পর্যাপ্ত পরিমাণ ইউনিক আর্টিকেল বা ইউনিক ব্লগ বা ইউনিক কন্টেন্ট থাকতে হবে। এবার প্রতিটি পেজে বা প্রতিটি পোস্টে বা প্রতিটি ক্যাটাগরিতে প্লাগিনের মাধ্যমে এসিও করার জন্য প্লাগিন থেকে একটি সাজেশন দেয়া হবে। সেই সাজেশন অনুযায়ী আপনার ওয়েবসাইট এর seo সঠিকভাবে করতে হবে। যেমন-

১. আপনার ওয়েবসাইটের কনটেন্ট মিনিমাম ৫০০ থেকে ৬০০ হতে হবে।

২. যে কোন একটি পেজের বা যে কোন একটিভ পোস্টের আপনার ওয়েবসাইটে ইনবাউন্ট এবং আউটবাউট লিঙ্ক থাকতে হবে।

৩. আপনার ওয়েবসাইটের পেজের বা ক্যাটাগরির ইমেজ অলটার ট্যাগ থাকতে হবে। 

৪. সঠিকভাবে টাইটেল এবং মেটা ডেসক্রিপশন দিতে হবে।

৫. একটি ফোকাস কিওয়ার্ড লাগাতে হবে এবং কিওয়ার্ডের উপর বেস করে ব্লগ লিখতে হবে।

৬. কনটেন্টি অবশ্যই সহজ ভাবে লিখতে হবে প্যাচানো ভাবে লিখা যাবে না।

এভাবে খুব সহজে প্লাগিন্সের মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইট এর seo করে নিতে হবে।

সোস্যাল শেয়ারের মাধ্যমে এসইও

এবার আপনার ওয়েবসাইটটিকে প্রমোশনের উদ্দেশ্যে ফেসবুক, টুইটার বা বিভিন্ন সোশ্যাল প্লাটফর্মে লিংক শেয়ার দিতে হবে। এছাড়া আপনার ওয়েবসাইটের কনটেন্ট, ভার্টিকেলে বা ব্লগে সোশ্যাল শেয়ার বাটন লাগাতে হবে। এতে করে ইউজার খুব সহজেই আপনার আর্টিকেলগুলো ফেসবুক টুইটার ইনস্টাগ্রাম ইত্যাদিতে শেয়ার দিতে পারবে। যা দেখে আপনার বন্ধু-বান্ধবেরা খুব সহজে আপনার ওয়েবসাইটে আসবে।

এজন্য আপনাকে বিভিন্ন সোশ্যাল প্ল্যাটফর্মে বিভিন্ন পেজ ক্রিয়েট করতে হবে এবং সেই পেজগুলোকে অনেক ভাইরাল করতে হবে। এরপর সেই পেজে আপনার ওয়েবসাইটের লিংক শেয়ারের মাধ্যমে আপনি ওয়েবসাইটের seo করতে পারবেন।

ইমেইল মার্কেটিং এর মাধ্যমে এসইও

এছাড়া ইমেইল মার্কেটিং এর মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইট থেকে সঠিকভাবে ভিজিটর পাওয়া সম্ভব। এজন্য এরকম অনেক প্ল্যাটফর্ম রয়েছে। যারা ফ্রিতে ইমেইল মার্কেটিং সেবা দিয়ে থাকে। তবে এটি একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ সেবা তারা দিয়ে থাকে। আপনার ওয়েবসাইটের ভিজিটর যদি অনেক বেশি হয়ে যায় এবং আপনার কাছে যদি অনেক বেশি ইমেইল থাকে তাহলে টাকা দিয়ে পেইড ভাবে আপনাকে ইমেইল মার্কেটিং করতে হবে। ইমেইল মার্কেটিং এর মাধ্যমে আপনার কাস্টমার বা আপনার বিভিন্ন ইউজার খুব সহজেই আপনার ওয়েবসাইটে ঢুকতে পারবে এবং আপনার আয়ে ভূমিকা রাখবে।

ইউটিউবের এর মাধ্যমে এসইও

ইউটিউবের মাধ্যমে আপনি আপনার ওয়েবসাইটের প্রমোশন করতে পারেন। এক্ষেত্রে আপনার youtube চ্যানেল থাকতে হবে এবং সেই ইউটিউব চ্যানেলে ভিডিও ডেসক্রিপশনে আপনার ওয়েবসাইটের লিংক দিয়ে দিতে হবে এবং সেখান থেকে ইউজারেরা ভিডিও দেখে পছন্দ করলে আপনার ওয়েবসাইটে ঢুকবে তখন আপনার ওয়েবসাইটের বিভিন্ন তথ্য বা বিভিন্ন ভাবে সেবা নিতে পারবে। এটা আপনার ওয়েবসাইটটি যদি ই কমার্স ওয়েবসাইট হয় সে ক্ষেত্রে তারা আপনার ওয়েবসাইট থেকে প্রোডাক্ট কিনতে পারবে।

পেইড প্রমোশনের এর মাধ্যমে এসইও

এছাড়া গুগল ও ফেসবুকে পেইড প্রমোশনের মাধ্যমে আপনি সহজেই আপনার ওয়েবসাইটটিকে প্রমোট করাতে পারেন। সেক্ষেত্রে ফেসবুক এবং গুগলকে টাকা দিতে হবে এজন্য আপনার একটি ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থাকতে হবে অথবা google অ্যাকাউন্ট থাকতে হবে। আর অবশ্যই আপনার টাকা পে করার জন্য একটি ক্রেডিট কার্ড অপশন থাকতে হবে। ক্রেডিট কার্ড ছাড়া আপনি এটি করতে পারবেন না। আর তাই খুব সহজে আপনি ফেসবুক এবং গুগলে পেইড প্রমোশনের মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটের এসিও করতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনি আপনার ওয়েবসাইটের নির্দিষ্ট পেজ বা নির্দিষ্ট ক্যাটাগরি বা নির্দিষ্ট পোস্টের লিংক শেয়ার করতে পারবেন। যা আপনার টাকা প্রদান করার মাধ্যমে দেশের সকল স্তরের মানুষের কাছে তথ্যটি পৌঁছাবে এবং আপনি লাভবান হবেন।