ভোটার আইডি কার্ড বা এনআইডি বা জাতীয় পরিচয়পত্র করার পর অনেক সময় আপনার ঠিকানা পরিবর্তন করা হতে পারে। দেখা যাচ্ছে যে আপনি একটি ঠকানায় ছিলেন। কিন্তু পরবর্তীতে আরেকটি ঠিকানায় গেছেন। যার ফলে আপনার ঠিকানা পরিবর্তন করার প্রয়োজন হতে পারে। এছাড়া আপনার নামের বানানে ভুল থাকতে পারে। এছাড়া আপনারা পিতা-মাতার নামের বানানে ভুল থাকতে পারে। এছাড়া আপনার ঠিকানার নামের বানানে ভুল থাকতে পারে। এই সকল ভুলগুলোকে ঠিক করার জন্য আপনি চাইলেই অনলাইন থেকে বাড়িতে বসে ভোটার আইডি কার্ড বা জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করে নিতে পারবেন। চলুন দেখা যাক কিভাবে আপনি আপনার ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করবেন।

অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ড বা এনআইডি বা জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করার নিয়ম

এজন্য আপনাকে একটি ওয়েব সাইটে যেতে হবে। সেটি হল services.nidw.gov.bd/nid-pub। এই ওয়েবসাইটে যে আপনাকে আপনার এনআইডি নাম্বার অথবা ইউজার নেম এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করতে হবে। আপনার যদি কোন অ্যাকাউন্ট না থাকে তাহলে আপনি রেজিস্টার বাটরে ক্লিক করে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র নাম্বার জন্ম তারিখ এবং ক্যাপচা কোড দিয়ে আপনি আপনার একাউন্ট তৈরি করে নিতে পারবেন। অথবা আপনি লগইন অপশনে যে পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন এটাতে ক্লিক করলেও আপনি একটি নতুন পাসওয়ার্ড পাবেন। এভাবে আপনি লগইন করতে পারবেন।

লগিন করার পর যা করতে হবে

লগইন করার পর আপনি আপনার প্রোফাইলটি দেখতে পাবেন। যেখানে আপনার ছবি আপনার স্বাক্ষর আপনার সবকিছু থাকবে। এখান থেকে আপনি প্রোফাইল, রিইস্যু, পাসওয়ার্ড, পরিবর্তন ডাউনলোড নামে চারটি বাটন পাবেন। এখান থেকে আপনাকে প্রোফাইল বাটনে ক্লিক করতে হবে।

প্রোফাইল বাটনে ক্লিক করার পরে আপনি আপনার সকল তথ্য পেয়ে যাবেন। এবার আপনি আপনার যে তথ্যটি পরিবর্তন করতে চান সেটির জন্য এডিট বাটনে ক্লিক করতে হবে। এডিট বাটনে ক্লিক করে আপনি আপনার যেকোন তথ্য পরিবর্তন করতে পারবেন। পরিবর্তন করা হয়ে গেলে পরবর্তী বাটনে ক্লিক করতে হবে। এবার আপনি আপনার যা যা পরিবর্তন করেছেন সেগুলো সব দেখতে পাবেন। এবার পরবর্তী বাটনে ক্লিক করতে হবে।

যেভাবে টাকা জমা দিতে হবে

এখান থেকে আপনাকে ৩৪৫ টাকা ফি হিসেবে জমা দিতে হবে। বিলটি আপনাকে বিকাশের মাধ্যমে পে করা যাবে। এজন্য আপনারা ঢুকবেন বিকাশ অ্যাপ এ ঢোকার পর পে বিল বাটনে ক্লিক করতে হবে। এখান থেকে Nid Service বাটনে এ ক্লিক করতে হবে।  তারপর আবেদনের ধরন Nid Info Correction এ সেট করতে হবে। এরপর আপনার এন আই ডি নাম্বারটি দিতে হবে। তারপর ৩৪৫ টাকা পে করে ওকে করতে হবে। তাহলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনি আপনার যে এপ্লিকেশনটি করছেন সেখানে ৩৪৫ টাকা দেখাবে। এটা রকেটের মাধ্যমে করতে করতে পারবেন।

৩৪৫ টাকার ডিপোজিট করার পর আপনার ট্রানজাকশন অপশনে ৩৪৫ টাকা দেখাবে। এবার পরবর্তী বাটনে ক্লিক করতে হবে। পরবর্তী বাটনে ক্লিক করার পর আপনার কাগজপত্র দিতে হবে।

যেভাবে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধনের জন্য আবেদন করতে হবে

আপনি যে তথ্য পরিবর্তন করেছেন সেই তথ্য সঠিক কিনা তার জন্য উপযুক্ত প্রমাণ হিসেবে আপনার জন্ম নিবন্ধনের কপি, আপনার সার্টিফিকেটেরর কপি, আপনার এসএসসি ইন্টারের প্রবেশপত্রের কপি, আপনার বাবার নাম বা মায়ের নামের ভোটার আইডি কার্ডের কপি এগুলো সত্যায়িত কপি হিসেবে ছবি আকারে আপলোড করতে হবে। এবার পরবর্তী বাটনে ক্লিক করতে হবে । এবার সাবমিট বাটরে ক্লিক করতে হবে। ক্লিক করার পর আপনার প্রোফাইল পেজে নিয়ে যাবে। সেখান থেকে বিস্তারিত প্রোফাইল এই বাটনে ক্লিক করতে হবে। এখান থেকে ডাউনলোড বাটনে ক্লিক করে আপনার বিস্তারিত কাগজটি প্রিন্ট আকারে বের করতে হবে। এই কাগজটি আপনাকে খুব ভালোভাবে রেখে দিতে হবে। এরপর কিছুদিনের মধ্যে আপনার সব তথ্য আপডেট হয়ে গেলে নির্বাচন কমিশন অফিস থেকে আপনাকে ফোন করে জানানো হবে যে আপনার সকল তথ্য আপডেট হয়ে গেছে। আপনি আপনার ভোটার আইডি কার্ডটি অনলাইন থেকে সংগ্রহ করে নিতে পারবেন। অথবা আপনি সে কাগজটি তাদের অফিসে যেয়ে আপনার আইডি কার্ডটি সংগ্রহ করে নিতে পারবেন। তবে একটি কথা মনে রাখতে হবে। আপনি আপনার ভোটার আইডি কার্ডের তথ্য শুধুমাত্র একবারই পরিবর্তন করতে পারবেন।