আমরা সকলে জানি যে একটি ওয়ার্ডপ্রেসের ওয়েবসাইট থিম এবং প্লাগিন্সের সমন্বয়ে তৈরি হয়। একটি থিম পুরো ওয়েবসাইটের লেআউট তৈরি করে থাকে আর প্লাগিন্স দিয়ে একটি ওয়েবসাইট এর বিভিন্ন ফাংশন যোগ করা যায়। তবে এর মধ্যে কিছু কিছু প্লাগিন্স রয়েছে যেগুলো একটি ওয়ার্ডপ্রেসের ওয়েবসাইটের জন্য খুবই প্রয়োজনীয়। বিশেষ করে সেই ওয়েবসাইটটি যদি একটি নিউজ বা ব্লগ ওয়েবসাইট হয়। সেক্ষেত্রে প্লাগিন্স খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। চলুন দেখে নেয়া যাক কি কি প্লাগিন্স ওয়ার্ডপ্রেসে ইন্সটল করা খুবই ভালো-

যে ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন গুলি অবশ্যই ওয়েবসাইটে লাগানো উচিত

১. 404 to 301 – Redirect

আমরা সকলে জানি যে একটি ওয়েবসাইটের যদি কোন পেজ, পোস্ট বা কোন কনটেন্ট ডিলিট করা হয় তাহলে সেটিতে যখন কেউ সার্চ করে তখন সেটিতে 404 error দেখায়। এই 404 error এসিও এর জন্য খুবই খারাপ এবং এটি গুগল সার্চ ইঞ্জিনের জন্য খুবই খারাপ। কারণ একটি ওয়েবসাইটে অতিরিক্ত পরিমাণে 404 error পেজ থাকলে ওয়েবসাইটের র‍্যাংকিং এ অনেক অসুবিধা হয় এবং ওয়েবসাইটটি কাঙ্খিত ভিজিটর পায়না। তাই এই সমস্যা দূর করার জন্য একটি প্লাগিন ব্যবহার করা হয়ে থাকে। প্লাগিনটি হল 404 to 301 – Redirect, Log and Notify 404 Errors এই প্লাগিনটি ইন্সটল করার পর এর সেটিংস অপশন থেকে কাস্টম ইউআরএলএ ওয়েবসাইটের হোমপেজ দিয়ে দিলে কোন 404 error পেজ থাকলে সেটি রিডাইরেক হয়ে হোমপেজে চলে আসবে। যার ফলে ওয়েবসাইট 404 error মুক্ত হবে।

২. Related Posts

একটি ব্লগ বা ম্যাগাজিন ওয়েবসাইটের সাথে যদি একটি রিলেটেড পোস্ট প্লাগিন সেট করা হয়। তাহলে সেক্ষেত্রে ঐ ব্লগ বা পেজ রিলেটেড আরো অনেক পোস্ট বা পেজ সেখানে দেখায়। যেটা পোস্ট বা পেজের নিচে দেখায়। এতে করে একটি ভিজিটর একটি ব্লগ পড়ার পর সেই রিলেটেড আরও অনেক ব্লগ পড়ার জন্য আগ্রহী হয়। এটা সাইটের এসইওর জন্য যেমন খুবই ভালো। ঠিক তেমনি এটি google সার্চ ইঞ্জিনে র‍্যাংক করার ক্ষেত্রেও খুবই ভালো। আর এই পদ্ধতি করার জন্য একটি রিলেটেড পোস্ট প্লাগিন লাগাতে হবে। ওয়ার্ডপ্রেসের কয়েকটি রিলেটেড পোস্ট প্লাগিন হল-

১. Display Posts

২. Related Post

৩. Related Posts by Taxonomy

৩. ক্যাশিং প্লাগিন

একটি ওয়েবসাইটের স্পিড একটি ওয়েবসাইট এর জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ। কারণ একটি স্লো ওয়েবসাইটে ভিজিটররা খুব বেশিক্ষণ থাকতে পছন্দ করে না। অপরদিকে একটি দ্রুত লোড নেয় এমন ওয়েবসাইটে ভিজিটর অনেক বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। এতে করে একটি ওয়েবসাইটের আয় অনেক বেড়ে যায়। ওয়েবসাইটের বাউন্স রেট অনেক ভালো হয় এবং এই ওয়েবসাইট থেকে অনেক বেশি পরিমাণ আয় করা যায়। একটি ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইটকে অনেক দ্রুত লোড নেওয়ার ব্যবস্থা করার জন্য একটি ক্যাশিং প্লাগিন এর প্রয়োজন হয়। সব থেকে ভালো ক্যাশিং প্লাগিন হল-

১. w3 total cache

২. wp super cache

৩. wp rocket cache

এই তিনটি প্লাগিনের যেকোনো একটি ব্যবহার করতে হবে এবং সঠিকভাবে কনফিগারেশন করলে ওয়েবসাইটের স্পিড অনেক গুণ বৃদ্ধি পাবে। এছাড়া এই প্লাগিন গুলোর সাথে বিভিন্ন কোম্পানির  CDN লাগানো যায়।

৪. Social Share plugin

একটি ব্লগ বা ম্যাগাজিন ওয়েবসাইটে Share Button Plugin খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। বিভিন্ন social share button plugin হয়ে থাকে। এদের মধ্যে যে কোন একটি লাগিয়ে দেওয়াটা খুবই ভালো। এতে করে পোস্ট বা ব্লগটি ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম, pinterest, Linkdin সহ সকল সোশ্যাল প্লাটফর্মে শেয়ার দেয়া সম্ভব হয়। কয়েকটি ভাল Social Share Button Plugin হল-

১. Monarch Social Sharing Plugin For WordPress

২. Easy Social Share Buttons for WordPress

৩. ShareThis

৫. Seo plugin

এসইও প্লাগিন একটি ওয়েবসাইটের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি প্লাগিন। এই প্লাগিন এর মাধ্যমে একটি ওয়েবসাইটকে সঠিকভাবে এসিও করে গুগল সার্চ বারে নিয়ে আসা সম্ভব হয় এবং একটি ওয়েবসাইটে সঠিকভাবে এসইও ফ্রেন্ডলি করে ব্লগ বা  আর্টিকেল লিখা যায়। সব থেকে ভালো এসিও প্লাগিন হলো-

১. All in one seo pack

২. Yoast seo plugin

৩. Rank math seo plugin

এই তিনটি প্লাগইনের মধ্যে যেকোনো একটি ব্যবহার করা যেতে পারে। এই তিনটি প্লাগইন একটি ওয়েবসাইটকে সঠিকভাবে এসিও করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। সবগুলি প্লাগিন এর মাধ্যমে meta title, meta tag, meta description, meta keyword লাগানোর অপশন রয়েছে। এছাড়া image alt tag, anchor tag লাগানোর অপশন রয়েছে।তিনটি প্লাগিনসেই গুগল ওয়েবমাস্টার টুলস ভেরিফিকেশন কোড ও গুগল এনালাইটিক কোড লাগানোর অপশন রয়েছে। এছাড়া লোকাল এসিও করার ফাংশনালিটিও রয়েছে এই তিনটি প্লাগিনে। কিভাবে একটি ব্লগে সুন্দরভাবে on page seo করতে হয় সেটির সাজেশন সুন্দরভাবে দেওয়া আছে এই তিনটি প্লাগিনেই।  তাই আপনারা অবশ্যই আপনাদের সাইটের সঠিকভাবে এসিও করার জন্য এই তিনটি প্লাগিন্সের যে কোন একটি ব্যবহার করতে পারেন।

৬. Wp pagenavi

ওয়ার্ডপ্রেসের একটি ওয়েবসাইটকে সুন্দর ও পরিচ্ছন্ন করার জন্য wp pagenavi প্লাগিনটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি প্লাগিন। কেননা একটি ওয়ার্ডপ্রেসে অনেকগুলো ব্লগ থাকে কিন্তু সব ব্লগ এক পেজে লাগানো সম্ভব হয় না। যার ফলে আলাদা আলাদা পেজে নাম্বারিং করে ব্লক গুলো লাগাতে হয়। আর এই নাম্বারিং করার জন্য wp pagenavi মাধ্যমে করা হয়ে থাকে। এর জন্য প্রথমের wp pagenavi প্লাগিনটি ইন্সটল করতে হবে। এরপর সেটিংস থেকে সঠিকভাবে এই প্লাগিনটি কনফিগারেশন করে নিতে হবে। তাহলে খুব সুন্দরভাবে 1234 আকারে ব্লগ বা আর্টিকেলগুলো পেজ ওয়াইজ দেখাবে।

৭. Really Simple SSL

আপনার ওয়েবসাইটকে যদি http থেকে https এ রূপান্তরিত করা হয়ে থাকে তাহলে Really simple ssl প্লাগিন্সটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। কেননা অনেক সময় ssl সার্টিফিকেট অ্যাড করার পরেও অনেক পেজ, ব্লগ বা ফাইলে http থেকে https হয় না। যার ফলে really simple ssl প্লাগিনটি দিয়ে খুব সহজে সেই লিংকগুলোকে http থেকে https এ রূপান্তরিত করা যায়। তাই really simple ssl প্লাগিনটি ইন্সটল করে ওয়েবসাইটটিকে একেবারেই সিকিউর করা যায়।

এছাড়া ওয়ার্ডপ্রেসের জন্য অনেক প্রয়োজনীয় প্লাগিন্স রয়েছে। যেগুলো বিভিন্ন ফাংশনে কাজ করে। তবে উপরের দেখানো প্লাগিন গুলো একটি ওয়েবসাইটে বিশেষ করে ব্লগ বা ম্যাগাজিন ওয়েবসাইট এর জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই উপরের প্লাগিনগুলো অবশ্যই আপনি আপনার ওয়েবসাইটে ব্যবহার করুন। ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইটের ফাংশনালিটি আরো উন্নত করুন।