অনলাইনে পরিচয়, সেখান থেকে প্রেম, অতঃপর ভয়াবহ প্রতারণা। এ ধরনের ঘটনা বর্তমান প্রযুক্তির যুগে প্রায়শই ঘটে থাকে। সম্প্রতি এমনই একটি ঘটনা ঘটেছে ভারতের মহারাষ্ট্রের নাগপুরে। বিয়ের মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিয়ে উপহার পাঠানোর নামে এক যুবকের কাছ থেকে ৪০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে এক যুবতীর বিরুদ্ধে।
ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজার জানায়, পাত্র-পাত্রী সংক্রান্ত একটি ওয়েবসাইটে এক যুবতীর সঙ্গে পরিচয় হয় নাগপুরের বাসিন্দা পুরোহিত সুশীলের।

ওই যুবতী নিজের নাম জানান সুচিতা দাস। তিনি নিজেকে যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক বলে পরিচয় দেন।

Advertisement

নাগপুর পুলিশের কর্মকর্তা বিজয় আকট জানিয়েছেন, ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর মাসে দু’জনের পরিচয় হয়। সুচিতা জানান, তিনি যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সির বাসিন্দা। দু’জনে ফোন নম্বরও দেওয়া নেওয়া করেন। কিছু দিন পরে সুচিতাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন সুশীল। সেই প্রস্তাবে তিনি সম্মতিও জানান।

বিজয় আরও জানান, সুশীল যুক্তরাষ্ট্র থেকে একটি মোবাইল পাঠাতে বলেছিলেন সুচিতাকে। তাতে সুচিতা জানান, তিনি শুধু মোবাইল পাঠাবেন না, সঙ্গে একটি ল্যাপটপ ও ১ লাখ ডলারও পাঠাবেন। ২০২০ সালের অক্টোবর মাসে সুচিতা সুশীলকে জানান, তিনি মোবাইল, ল্যাপটপ ও টাকা পাঠিয়ে দিয়েছেন।

এরপরই এক ব্যক্তি নিজেকে শুল্ক দপ্তরের কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে সুশীলকে ফোন করে উপহারগুলো নেয়ার জন্য কর বাবদ টাকা চান। বিভিন্ন ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ৪০ লাখ ৬৪ হাজার ৮৫৩ টাকাও পাঠান সুশীল। কিন্তু শেষমেষ কিছু না পেয়ে তিনি বুঝতে পারেন তাকে প্রতারণা করা হয়েছে।

এ ঘটনার পর পুলিশে অভিযোগ করেন সুশীল। ঘটনার তদন্ত শুরু করে পুলিশ। দিল্লি থেকে ওই যুবতী, আমেরিকার এক নাগরিক ও আরও ১৫ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

Advertisement