ইউটিউবে ভিডিও এর নিচে লাইক বাটন থাকার পাশাপাশি ডিসলাইক বাটন রয়েছে। এতে একজন দর্শক ভিডিও ভাল না লাগলে ডিসলাইক বাটনে চাপ দিয়ে তার মনের ভাব প্রকাশ করে থাকে। যা ইউটিউবে শুরু থাকেই হয়ে আসছে। কিন্তু সম্প্রতি জানা যাচ্ছে ইউটিউব নাকি তাদের প্লাটফর্ম থেকে এই ডিস্লাইক বাটনটি সরিয়ে নিবে।

কেন এই ডিসলাইক বাটনঃ

Advertisement

একটি ভিডিওতে অনেক বেশি ডিসলাইক পড়লেই যে সেই কন্টেন্ট ক্রিয়েটরের আয় অনেক কমে যায় তা কিন্তু মোটেও নয়। কারণ আয় নির্ভর করে ভিউ এর উপর। আবার ভিডিওতে অনেক ডিসলাইক আছে বলে তার ভিডিও অনেক কম রিচ হবে এটাও ঠিক নয়। রিচ নির্ভর করে সেই কন্টেন্টের এঙ্গেজিং এর উপর। তাহলে ডিসলাইক বাটন থাকা না থাকা নিয়ে লাভ বা ক্ষতি কি? এর উত্তর হল একটি ভিডিও অনেক বেশি ডিসলাইক পড়লে ভিডিও ক্রিয়েটর অনেক বেশি সচতন হতে পারে ও পরবর্তি ভিডিও সে দর্শকের জন্য অনেক ভালভাবে বানানোর চেষ্টা করে তার বেশি ডিসলাইক পাওয়া থেকে শিক্ষা নিয়ে। তবে অনেক কন্টেন্ট মেকার অতিরিক্ত ডিসলাইক দেখে কাজ করা এনার্জী হারিয়ে ফেলেন, যা মোটেও ঠিক না।

ইউটিউব কি ডিসলাইক বাটন তুলে দিচ্ছেঃ

ইউটিউব কর্তৃপক্ষ কিছুদিন আগে জানিয়েছে তারা ইউটিউব থেকে ডিসলাইক বাটন তুলে দিবেনা। কিন্তু ইউটিউবের কোন ভিডিও তে কয়টি ডিসলাইক হল তার আর দর্শকেরা দেখতে পাবে না। এক্ষেত্রে ইউটিউব যুক্তি দেখিয়েছে অনেকে খারাপ উদ্দ্যেশে কয়কটি গ্রুপে একত্র হয়ে কোন ক্রিয়েটরকে হয়রানি মূলক ডিসলাইক বন্যা করে থাকে। যাতে করে সেই ক্রিয়েটর ভিডিও বানাতে অনেক নিরাপত্তাহীন মনে করেন ও সামাজিকভাবে হেয় হয়ে থাকেন।

একারণে ইউটিউব এই বাটনটি পাইভেট করে দিচ্ছে যাতে করে নতুন ক্রিয়েটরেরা প্রথম অবস্থাতেই হতাশ না হয়ে পড়ে। তাই ডিস্লাইক কাউন্টিং হাইড করে দিচ্ছে ইউটিউব। যদিও এর আগে থেকেই একজন কন্টেন্ট ক্রিয়েটর তার পছন্দমত ভিডিও থেকে ডিস্লাইক বাটন প্রাইভেট করতে পারত। তবে এবার ইউটিউব সকল ভিডিও থেকেই ডিস্লাইক বাটন সয়ংক্রিয়ভাবেই প্রাইভেট করে দিবে।

Advertisement