খুব সহজেই অ্যাফেলিয়েট মার্কেটিং থেকে টাকা আয় করা যায়। আগে বুঝতে হবে অ্যাফেলিয়েট মার্কেটিং? অ্যাফেলিয়েট মার্কেটিং হল এমন একটি মার্কেটিং যেটি হল অন্যের প্রোডাক্টকে বিক্রি করে দিয়ে কিছু কমিশন লাভ করা। অর্থাৎ কারো কাছে কোন একটি প্রোডাক্ট রয়েছে বিক্রি করতে পারছে না কিন্তু আপনি সেটি বিক্রি করতে সাহায্য করলেন। সে লাভবান হলো এবং তার লভ্যাংশ থেকে কিছু কমিশন আপনাকে দিল। এটাকে অ্যাফেলিয়েট মার্কেটিং বলে। এখানে এই তার প্রোডাক্টটি বিক্রিতে একটি প্রক্রিয়া মাধ্যমে হয়ে থাকে। এটি সম্পূর্ণ অনলাইনে হয়ে থাকে। আর এই প্রক্রিয়াকে অ্যাফেলিয়েট মার্কেটিং বলে। এখানে যে শুধু প্রোডাক্ট বিক্রি হয় তা না।  একজন ক্লায়েন্ট বা কেউ তার সার্ভিস প্রদান করে টাকা আয় করার জন্য। আপনি যদি তাকে সাহায্য করেন, যেভাবেই হোক তাহলে সে আপনাকে একটি কমিশন দিবে যাকে অ্যাফেলিয়েট মার্কেটিং বলে।

কিভাবে ব্লগ ওয়েবসাইটে অ্যাফেলিয়েট মার্কেটিং করতে হয়-

একটি ব্লগ ওয়েবসাইট বানিয়ে খুব সহজে অ্যাফেলিয়েট মার্কেটিং করা যায়। সে ক্ষেত্রে ধরুন আপনি যেই প্রোডাক্টের মার্কেটিং করতে যাচ্ছেন সেই প্রোডাক্টের একটি ভালো শীর্ষ কোম্পানি থেকে অ্যাফেলিয়েট লিংক সংগ্রহ করতে হবে। এবার সেই লিংকটি আপনার ওয়েবসাইটের ব্লগে দিয়ে দিতে হবে। আর আপনার ওয়েবসাইটটির ব্লগ অবশ্যই সেই অ্যাফেলিয়েট প্রোডাক্ট অনুযায়ী হতে হবে। অর্থাৎ আপনি যে প্রোডাক্টটি আপনার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে বিক্রি করতে চাচ্ছেন সেই রকম ব্লগ লিখতে হবে।

ধরুন আপনি amazon.com এর অনেকগুলি কসমেটিক প্রোডাক্টের লিংক আপনার ওয়েবসাইটে লাগাতে চাচ্ছেন। এক্ষেত্রে সর্বপ্রথম আপনাকে সেই কসমেটিক প্রোডাক্ট এর উপরে একটি ব্লগ লিখতে হবে বা অনেক কয়েকটি ব্লগ লিখতে হবে। এবং সেই ব্লগে যেন বিভিন্ন ভিজিটর আসে সে ব্যবস্থা করতে হবে। সেই ব্লগের ওয়েবসাইটটি খুব ভালোভাবে এসিও করতে হবে। যাতে করে প্রচুর পরিমাণে ভিজিটর আপনার ওয়েবসাইটে আসে। এবার amazon.com থেকে সেই প্রোডাক্টের অ্যাফেলিয়েট লিংক সংগ্রহ করতে হবে। এজন্য অ্যামাজনে প্রথমে সাইনআপ করতে হবে এবং তাদের সেই প্রোডাক্টের অ্যাফেলিয়েট লিংক সংগ্রহ করতে হবে। 

যেভাবে অ্যাফেলেইট লিংক ব্লগ ওয়েবসাইটে দিতে হবে

এই লিংকট আপনার ব্লগের সাইটে দিয়ে দিতে হবে। ব্লগের ভেতর এরপর কোন ভিজিটর যখন আপনার সেই  ব্লগটি পড়বে। পড়তে এসে একসময় সেই অ্যামাজনের অ্যাফেলিয়েট লিংকেন ক্লিক করে। সে প্রোডাক্টটি যদি কিনে তাহলে আপনি কিছু কমিশন পাবেন। ধরুন সে প্রোডাক্ট এর দাম ১০ ডলার হলে আপনি দুই ডলার কমিশন পাবেন। এভাবে আপনি যদি প্রতিদিন দশটি করে পন্য বিক্রি করতে পারেন তাহলে আপনার ২০ ডলার জমা হবে জমা হবে। এভাবে আপনি খুব সহজেই এফিলিয়েট লিংক আপনার ব্লগ বা পেজে লাগিয়ে ইনকাম করতে পারবেন। আর সেই আয়ের কিছু টাকা আপনি আপনার ব্যাংক একাউন্টের মাধ্যমে তুলে নিতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে আপনার ওয়েবসাইটের জন্য প্রচুর ভিজিটর হয়। আপনার ওয়েবসাইটটি যেন জনপ্রিয় হয়। তাহলে আপনি ভালো আয় করতে পারবেন।

এভাবে আপনি যদি কোন ডোমেইন হোস্টিং সার্ভারের অ্যাফিলিয়েট লাগাতে চান তাহলে সে ক্ষেত্রে সেই সার্ভারের সেই সার্ভিসের অ্যাফিলিয়েট লিংক সংগ্রহ করে আপনি টেকনোলজি রিলেটেড একটি ব্লক ওয়েবসাইট তৈরি করবেন। সেখানে সেই লিংক গুলো দিয়ে টাকা ইনকাম করতে পারব। অ্যাফিলিয়েট লিংক প্রদান করে এরকম কয়েকটি ওয়েবসাইট হল

Amazon.com

Alibaba.com

Godaddy.com

Mythemeshop.com

Envatomarket.com ইত্যাদি

অন্যান্য অ্যাফেলেইট মার্কেটিং ওয়েবসাইট

এছাড়া কিছু কিছু অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং ওয়েবসাইট রয়েছে, যারা বিভিন্ন বায়ারদের কাছ থেকে অ্যাফিলিয়েট সংগ্রহ করে এবং আপনারা চাইলে সেই সকল বায়ারদের টাস্ক পূরণ করে তাদের ইনকামের উপর একটি কমিশন পেতে পারেন। তারপর ধরুন একটি বায়ার বলল যে তার ইউনাইটেড স্টেটস থেকে ১০০ টি ইমেইল লাগবে। সেটি একটি নির্দিষ্ট ক্যাটাগরির উপর। এবং পারে আপনাকে প্রোভাইড করবে এতে করে আপনি আপনি একটি ওয়েবসাইট খুলে সেখানে আমেরিকান লোকজনদেরকে টার্গেট করে ইমেইল মার্কেটিং করে সাবস্ক্রাইবার এর মাধ্যমে তার ইমেইলটি সংগ্রহ করে তাকে প্রদান করলেন। সে আপনাকে ১০০টি মিলে যেন ২০০ ডলার দিল।  ভাবে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংকরা যায়। এছাড়া আরো অনেক ধরনের কাজ রয়েছে

এ ধরনের ওয়েবসাইটের ভিতরে সবথেকে জনপ্রিয় ওয়েব সাইট clickbank.com। এ ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপনারা খুব সহজে ক্লিক কালেক্ট করে মার্কেটিং করতে পারবেন। আপনাদের নির্দিষ্ট কমিশন পেতে পারবেন।

Youtube এর মাধ্যমে অ্যাফেলিয়েট মার্কেটিং

ইউটিউবের মাধ্যমে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং টাও অনেকটা একই রকম নিয়মই হয়। এক্ষেত্রে আপনার একটি ইউটিউব চ্যানেল থাকতে হবে এবং আপনি যে রিলেটেড ইউটিউব ভিডিও দিবেন সেই রিলেটেড লিংক বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে সংগ্রহ করে আপনার ভিডিও ডেসক্রিপশনে দিয়ে দিবেন। এক্ষেত্রে আপনার ইউটিউব চ্যানেলের জনপ্রিয়তা হওয়াটা খুবই ভাল। এছাড়া youtube এর ভিডিওতে অনেক বেশি যেন ভিউ হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। লিংকে ক্লিক এর মাধ্যমে যত বেশি সেই প্রোডাক্টটি সেল হবে তত বেশি আপনি কমিশন পাবেন। এতে করে আপনি লাভবান হবেন।  তবে খেয়াল রাখতে হবে ভিডিও যেই বিষয়ের এর উপর হবে সেই বিষয়েরই প্রোডাক্টের অ্যাফিলিয়েট হলে সবথেকে ভালো এবং ভালো প্রসিদ্ধ জনপ্রিয় ওয়েবসাইটের অ্যাফিলিয়েট লিংক সংগ্রহ করার চেষ্টা করতে হবে। এভাবে ইউটিউবের ভিডিওতে ভিডিও ডেসক্রিপশনে অ্যাফিলিয়েট লিংক দিয়ে টাকা আয় করা যায়।