সাতক্ষীরায় অসুস্থ বৃদ্ধ বাবার জন্য অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে যাওয়ার পথে শহরের ইটাগাছা হাটের মোড়ে ছেলেকে দুই ঘণ্টা আটকে রাখেন পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই সুভাষ সেন। এদিকে বাড়িতে অক্সিজেনের অভাবে রজব আলী মোড়লের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে পরিবারটি।

বৃহস্পতিবার (৮ জুলাই) সকাল ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। সাতক্ষীরা সদর উপজেলার বৈচনা গ্রামে করোনা উপসর্গ নিয়ে রজব আলী মোড়ল মারা যান।

Advertisement

রজব আলীর ছেলে ওলিউল ইসলাম জানান, করোনা উপসর্গ নিয়ে বাড়িতে ছিলেন বাবা। অক্সিজেনের প্রয়োজন ছিল জরুরি। শহরের পলাশপোল এলাকার এক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে একটি অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে বাড়িতে যাচ্ছিলাম।

তিনি আরো জানান, মোটরসাইকেল যোগে ইটাগাছা হাটের মোড়ে পৌঁছালে আমাকে থামান ইটাগাছা পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই সুভাষ চন্দ্র। এরপর তিনি লকডাউনে বাইরে বেরিয়েছি কেন জানতে চান ও ১ হাজার টাকা দাবি করেন। দাবিকৃত টাকা দিতে না পারায় তাকে দুই ঘণ্টা সেখানে আটকে রাখা হয়।

পরে ইটাগাছা এলাকার জনৈক জিয়াউল ইসলামের মধ্যস্থতায় ২০০ টাকা নিয়ে এএসআই সুভাষচন্দ্র তাকে ছেড়ে দেন। কিন্তু ততক্ষণে অনেক দেরি হয়ে গেছে। বাড়িতে গিয়ে দেখি অক্সিজেনের অভাবে আমার বাবা মারা গেছেন।

তবে এই ঘটনার বিষয়ে ইটাগাছা পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই সুভাষ চন্দ্র বলেন, মোটরসাইকেলের কাগজপত্র দেখতে চেয়েছিলাম। তিনি দেখাতে পারেননি। বাড়ি থেকে কাগজপত্র এনে দেখাতে বলেছিলাম।

অক্সিজেনের বিষয়টি জানার পর তাকে বলেছিলাম, পরে এসে কাগজপত্র দেখিয়ে যেতে। তাকে বেশি সময় আটকে রাখিনি। পরে শুনলাম তার বাবা মারা গেছেন।

সাতক্ষীরা সদর থানার ওসি দেলোয়ার হোসেন বলেন, ওই ছেলেটার মোটরসাইকেল আটক করলে পুলিশের সঙ্গে তার বাগবিতণ্ডা হয়। অক্সিজেন সিলিন্ডার থাকায় তাৎক্ষণিক তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। এখন ছেলেটি অভিযোগ করছে অক্সিজেনের অভাবে তার বাবা মারা গেছেন।

Advertisement